Breaking News
Home / চট্টগ্রাম / সুবিধাবঞ্চিত ছোট্ট সোনামনিদের মুখে ঈদের হাসি ফুটালো রেলওয়ে থানা।

সুবিধাবঞ্চিত ছোট্ট সোনামনিদের মুখে ঈদের হাসি ফুটালো রেলওয়ে থানা।

সুবিধাবঞ্চিত ছোট্ট সোনামনিদের মুখে ঈদের হাসি ফুটালো রেলওয়ে থানা

কমল চক্রবর্তী চট্টগ্রাম থেকে–    চট্টগ্রামের সুবিধাবঞ্চিত পথ শিশুদের মুখে হাসি ফুঁটাতে চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোস্তাফিজ ভুইয়াসহ থানার সকল অফিসার ও ফোর্স তাদের ব্যক্তিগত টাকায় ফান্ড গঠন করে ঈদের দিনের নতুন কাপড় তুলে দিয়ছে অযত্ন অবহেলায় বেড়ে উঠা ছিন্নমূল পথ শিশুদের জন্য গড়া “আলোর ঠিকানা”র সুবিধাবঞ্চিত ছোট্ট সোনামনিদের । ঈদের নতুন কাপড় এর পাশাপাশি মুখে তুলে দেয়া হয়েছে ঈদের বিশেষ খাবার। যাদের মুখে ঈদের খুশি নেই আনন্দ নেই। আছে বুকভরা কষ্ট আর অযত্ন অবহেলা। এই সকল ছোট্ট সোনামনিদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করেছে রেলওয়ে থানা। অন্য সকল শিশুদের মত হাসিতে ভড়ে উঠুক ওদের জীবন এমনটাই প্রত্যাশা সকলের।

গতকাল ২৫ মে সোমবার ঈদের দিনে পুরাতন রেলস্টেশনে অবস্থিত আলোর ঠিকানায় চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোস্তাফিজ ভুইয়া স্কুলের প্রধান ঋত্বিক নয়নের উপস্থিতিতে সুবিধাবঞ্চিত ছোট্ট সোনামনিদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেন।

রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোস্তাফিজ ভুইয়া বলেন, “আলোর ঠিকানা” সুবিধাবঞ্চিত ছোট্ট সোনামনিদের নিয়ে কাজ করছে। আমরা রেলওয়ে থানা টিম নিজেদের টাকায় ফান্ড গঠন করে সুশৃঙ্খলভাবে সুবিধাবঞ্চিত পথশিশুদের মাঝে ঈদের নতুন জামা বিতরণ করে আনন্দ ভাগাভাগি করে নিয়েছি। পাশাপাশি ওদের মাঝে ঈদের দিনের বিশেষ খাবার বিলি করা হয়েছে। ভবিষ্যতে আরও নতুন কিছু এই কার্যক্রমের আওতায় নিয়ে আসব । এর বাইরেও আমরা অন্য পথ শিশুদের নিয়ে কাজ করব। এই বছর আমরা পথ শিশুদের জন্য ঈদের জন্য নতুন কাপড় বিতরণ করেছি। ঈদে পথ শিশুদের মুখে হাসি থাকুক এটা সবাই চায়। সেই জন্যই আমরাও এর ব্যতিক্রম নই। এভাবে সবাই যদি এদের পাশে এসে হাত বাড়িয়ে দেয় তবে হাসি মাখা মুখের সংখ্যা দিন দিন বাড়বে। আমাদের এতটুকু মানবিকতা আর ভালোবাসাই হোক ওদের বেঁচে থাকার অবলম্বন। তাই আনন্দটা ওদের সাথে শেয়ার করতে পেরে আমরা নিজেদের ভাগ্যবান মনে করছি।

তিনি আরও বলেন, এছাড়া আমরা করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুষদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করছি। দুই দফায় আমরা নিজের অর্থায়নে বেশ কিছু অসহায় মানুষদের খাদ্য সহায়তা দিয়েছি। তৈরী খাবার ও বিলিয়েছি। আগামী কাল পরশু আমরা আরো প্রায় ২০০ জনকে খাদ্য সহায়তা দিব। পথ শিশুদের নিয়ে কাজ করা বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন আমাদের এ কাজে সহযোগিতা করছে। গত এক বছর আগে আমি নিজে উপস্থিত থেকে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের ১ টাকার খাবার কর্মসূচির উদ্ভোধন করেছিলাম। বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন কে ধন্যবাদ জানাই আমাদের এই ভাবে সহযোগিতা করার জন্য।

Check Also

মেজর সিনহা: চট্টগ্রামের রেঞ্জ ডিআইজি কক্সবাজারে

মেজর সিনহা: চট্টগ্রামের রেঞ্জ ডিআইজি কক্সবাজারে ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান খান: সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *