Breaking News
Home / অর্থ বণিজ্য / পায়রা বন্দরে এমপির লোকজন ঠিকাদারকে জীবন নাশের হুমকি উন্নয়ন মুলক কাজ বন্ধ।

পায়রা বন্দরে এমপির লোকজন ঠিকাদারকে জীবন নাশের হুমকি উন্নয়ন মুলক কাজ বন্ধ।

পায়রা বন্দরে এমপির লোকজন ঠিকাদারকে জীবন নাশের হুমকি উন্নয়ন মুলক কাজ বন্ধ।

এস আল-আমিন খানঁ পটুয়াখালী জেলা-প্রতিনিধিঃ

পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের একটি অংশের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বন্ধ করে নদীর তীরের ঘাটলা দখল করে রেখেছে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি মহল। ওই মহলটি ঠিকাদারের কাছে জমি লীজ দেয়া মালিককে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে অলিখিত ষ্টাম্পে জোড়পূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে তাকেও ভয় দেখাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। যার ফলে গত প্রায় এক মাস যাবৎ ওই ঘাট দিয়ে বালু, পাথর উঠাতে না পেরে হতাশায় ভুগছেন ভূক্তভোগি ঠিকাদার। এই ঘটনায় থানায় ও পুলিশ সুপার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী।

অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় এক সংসদ সদস্যের মদদে চলা প্রভাবশালী ওই মহলটি উন্নয়নমূলক কাজ বন্ধ করে ঠিকাদারের নির্মানাধীন ঘাটলা দখল করে রেখেছে।

তবে উন্নয়নমূলক কাজে কেউ যাতে বাধা দিতে না পারে সে ব্যপারে স্থানীয় সংসদ সদস্যকে অনুরোধসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক।

পটুয়াখালী পুলিশ সুপার কার্যালয়ের স্মারক নং ৪৫১/এসপি ২৩মে ২০২০ইং তারিখের লিখিত আবেদনে ভুক্তভোগি ঠিকাদার শামিমুজ্জামান কাশেম উল্লেখ করেছেন যে, কিছুদিন আগে তিনি পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজ যথাযথভাবে সম্পন্ন করার জন্য স্থানীয় হেলাল মোল্লা গংদের কাছ থেকে মাটি ভাড়া নেন। সেখানে কাজ করতে গেলে গত ১০ মে তারিখে কাশেমের উপর হামলা চালায় কলাপাড়ার রমজান ও রাসেল। এসময় তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমন করে নগদ এক লাখ বিশ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। তাকে বাচাতে স্থানীয় হেলাল মোল্লাসহ অন্যান্যরা এগিয়ে আসলে হেলালের দোকানঘর ভাংচুর করা হয়।

এ ঘটনা জানিয়ে ওই দিন রাতেই রমজান ও রাসেলের বিরুদ্ধে কলাপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৯ তারিখ ১০.০৫.২০ইং।

এর পরে অচেনা সন্ত্রাসীরা ওই আসামীদের পক্ষ নিয়ে ঘটনার নয়দিন পর ঠিকাদার কাশেমের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সমূদয় কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে প্রাননাশের হুমকী দিয়ে চলে আসে।

এ ঘটনা তাৎক্ষনিকভাবে মৌখিক পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করলে ওই দিন রাতেই আবার জোড়পূর্বক ঠিকাদার কাশেমের লীজ নেয়া জমির দাতাদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অলিখিত ষ্টাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে নেয় অভিযুক্তরা।

এরপর গত ২২ মে তারিখ বিকালে সন্ত্রাসীরা ঠিকাদার কাশেমের লীজ নেয়া নির্মানাধীন ঘাটে গিয়ে তাকে খোজাখুজি করে, না পেয়ে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে চলে আসে। এধরনের কর্মকান্ডে চরম ভীতির মধ্যে রয়েছে ওই ঠিকাদার। এদিকে ঘাটের নির্মানকাজও রয়েছে বন্ধ।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কাজী আলমগীর হোসেন জানান, উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে বাধা দেয়ার এখতিয়ার কারও নেই। বিষয়টি আমি নিস্পত্তির জন্য সংসদ সদস্যের সাথে কথা বলেছি। প্রশাসনকেও বিষয়টি অবহিত করেছি।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আঃ মান্নানও একই কথা জানালেন। তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নকে ত্বরান্নিত করতে দলবল নির্বিশেষে সকলকে এগিয়ে আসা উচিত। সেখানে সংসদ সদস্যের সমর্থনপুষ্ট লোকজন বাধা প্রদান করে, সেটা কারো কাম্য নয়। বিষয়টির দ্রুত নিস্পত্বি হওয়া দরকার।

এব্যপারে সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান এর সাথে যোগাযোগের জন্য তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে দুপুর ২টা ৩২ মিনিট থেকে বার বার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এই ঘটনায় কলাপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনাসহ ঠিকাদারকে উদ্ধার করেছে। একই সাথে মামলার পরে আসামী গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। #

Check Also

বাজারে আসছে ৫০ টাকার নতুন নোট”

“বাজারে আসছে ৫০ টাকার নতুন নোট। অনলাইন ডেস্কঃ লালচে কমলা রঙে বঙ্গবন্ধুর ছবি ও গভর্নর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *