Breaking News
Home / রাজনীতি / আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বিশিষ্ট শিল্পপতি ও মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সিআইপি শুভেচ্ছা।

আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বিশিষ্ট শিল্পপতি ও মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সিআইপি শুভেচ্ছা।

আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বিশিষ্ট শিল্পপতি ও মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সিআইপি শুভেচ্ছা।
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কী উপলক্ষে সকল নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের মুজিবিয় শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন জানিয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতে গোল্ডেন ভিসা স্হায়ী রেসিডেন্সি ভিসা সম্মানসূচক গোল্ডেন ভিসা অর্জনকরি,চট্টগ্রাম অঞ্চলের সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রেরণকারী,বাংলাদেশ ব্যাংক রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড অর্জনকারী, জাতীয় কবিতা মঞ্চ, সংযুক্ত আরব আমিরাত কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক,মীরসরাই সমিতির সভাপতি,
বিশিষ্ট দানবীর, শিল্পপতি, সমাজসেবক,মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সি আই পি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারবর্গ এবং জাতীয় চার নেতাসহ স্বাধীনতা সংগ্রামে সকল শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনা ও গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাফল্য কামনা করে শুভেচ্ছা বাণীতে
মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সি আই পি বলেন – আজ ২৩ জুন। ১৭৫৭ সালের এই দিনে ভাগীরথী নদীর তীরে অস্তমিত হয়েছিল বাংলার স্বাধীনতার সূর্য। ১৯২ বছর পর একই দিনে বাংলার মানুষের মুক্তি আর অধিকার আদায়ের জন্য গঠিত হয় বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ। পুরান ঢাকার বিখ্যাত রোজ গার্ডেনে এ দলটির জন্মলাভের মধ্য দিয়েই রোপিত হয়েছিল বাঙালীর হাজার বছরের লালিত স্বপ্ন স্বাধীনতা সংগ্রামের বীজ। বঙ্গবন্ধু-আওয়ামী লীগ-স্বাধীনতা এই তিনটি শব্দ অমলিন, অবিনশ্বর। ইতিহাসে এই তিনটি শব্দ একই সূত্রে গাঁথা। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালের ১৭ মে পিতৃ-মাতৃ, ভাই, স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে স্বদেশ ভূমিতে দেশে ফেরার পর থেকেই তিনি নিরলসভাবে দেশের অধিকারহারা মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য নিরবচ্ছিন্ন লড়াই-সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছেন। মূলতঃ আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ফলে দেশে গণজাগরণের ঢেউ জাগে, গুণগত পরিবর্তন সূচিত হয় রাজনৈতিক আন্দোলনের, গণসম্পৃক্ততা বৃদ্ধি পায় সংগঠনের; দেশবাসী পায় নতুন আলোর দিশা। গণমানুষের মুক্তির লক্ষে আন্দোলন-সংগ্রাম করার কারণে তাঁকে বারবার ঘাতকদের হামলার শিকার ও কারা নির্যাতন ভোগ করতে হয়েছে। কিন্তু বাংলার মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের সংগ্রামে তিনি আজো অবিচল থেকে নিরবচ্ছিন্ন প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মানব কল্যাণ, জনগণের প্রয়োজনের সময়ে সাড়া দেওয়া, জনগণের চাওয়া-পাওয়া, আশা-আকাঙ্ক্ষা বুঝতে পারা, জনগণের মধ্যে আত্মনিবেদিত কাজ, আধুনিকতা, বিজ্ঞানমনস্কতা এবং অগ্রসর চিন্তা চেতনাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের প্রাণশক্তি। বাংলাদেশের হৃদয় থেকে উৎসারিত এই প্রাণশক্তিই আওয়ামী লীগকে জন্মলগ্ন থেকে আজ পর্যন্ত এদেশের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দলের মর্যাদায় অধিষ্ঠিত রেখেছে। ঐতিহাসিক প্রয়োজনে জনগণের ভেতর থেকে গড়ে উঠেছে জনগণের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান আওয়ামী লীগ। যার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটির ভূখন্ডের সীমানা পেরিয়ে এই উপমহাদেশের অন্যতম বৃহৎ এবং জনসমর্থনপুষ্ট অসামপ্রদায়িক, প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক, মানব কল্যাণকামী রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তার পরিচিতি অর্জনে সক্ষম হয়েছে। আওয়ামী লীগ মানেই বাঙালী জাতীয়তাবাদের মূলধারা। আওয়ামী লীগ মানেই সংগ্রামী মানুষের প্রতিচ্ছবি। বাংলাদেশের কাদা-মাটি গায়ে মাখা খেটে খাওয়া মানুষের কাফেলা। অতীতের মতো বাংলাদেশের ভবিষ্যত ও আওয়ামী লীগের সঙ্গে অবিচ্ছেদ্যভাবে যুক্ত। স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা, সর্বশেষ সামরিক স্বৈরশাসন থেকে গণতন্ত্রে উত্তরণের প্রতিটি অর্জনের সংগ্রাম-লড়াইয়ে নেতৃত্বদানকারী একটিই রাজনৈতিক দল, তা হচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। বাঙালী জাতির প্রতিটি অর্জনেরও দাবিদার প্রাচীন ও সুবিশাল এ রাজনৈতিক দলটি। পরাধীনতার শৃঙ্খল ছিন্ন করে হাজার বছরের কাঙ্খিত বাঙালি জাতির স্বাধীনতা লাভসহ সকল মহতী অর্জনের নেতৃত্বে ছিল জনগণের প্রাণপ্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যার মহানায়ক ছিলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।বঙ্গবন্ধুর সেই কালজয়ী ভাষণ গুলো মানুষের সম্মুখে তুলে ধরতে হবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ছিল গণমানুষের প্রেরণা বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ছিল সততা-নিষ্ঠা ন্যায় নীতি দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ না করে প্রকৃত রাজনীতিবিদ হওয়া যায় না তেমনি বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসার জন্য রাজনৈতিক হওয়া লাগে না বঙ্গবন্ধু ছিল গণমানুষের অবিচল আস্থার মূর্ত প্রতীক। বঙ্গবন্ধু আমার একান্ত ভালবাসা ও আমার অনুপম প্রেরণা।বঙ্গবন্ধু চিরঞ্জীব হোক।আজ তাঁরই সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির সমৃদ্ধ ভবিষ্যৎ রচনার আলোকোজ্জ্বল পথ তথা আর্থ-সামাজিক-সার্বিক মুক্তির লক্ষে কাজ করে চলেছেন। তাই ৭১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষির্কীতে স্বাধীনতার স্বপক্ষের জনগণকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকল উন্নয়নে শামিল হওয়ার আহবান জানিয়েছেন বিশিষ্ট শিল্পপতি ও মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সি আই পি।

Check Also

রূপনগরের বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে প্রভাবশালী মহল জড়িত : মির্জা ফখরুল

রূপনগরের বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে প্রভাবশালী মহল জড়িত : মির্জা ফখরুল। অনলাইন ডেস্কঃ রাজধানীর মিরপুরে রূপনগরের ঝিলপাড় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *