Breaking News
Home / রাজনীতি / দলের ত্যাগী আর পরীক্ষিত নেতা এডভোকেট জহিরকে সাতকানিয়া পৌরমেয়র পদে নৌকার মাঝি চাই-মোহাম্মদ ফখরুদ্দিন বাবলু

দলের ত্যাগী আর পরীক্ষিত নেতা এডভোকেট জহিরকে সাতকানিয়া পৌরমেয়র পদে নৌকার মাঝি চাই-মোহাম্মদ ফখরুদ্দিন বাবলু

দলের ত্যাগী আর পরীক্ষিত নেতা এডভোকেট জহিরকে সাতকানিয়া পৌরমেয়র পদে নৌকার মাঝি চাই-মোহাম্মদ ফখরুদ্দিন বাবলু,সাবেক সভাপতি, চট্রগ্রাম কলেজ ছাত্র লীগে( ১৯৮৬-৮৭)

বৃহত্তর সাতকানিয়া থানা( সাতকানিয়া- লোহাগাড়া উপজেলা)য় আওয়ামী পরিবারের গর্বিত সন্তান এডভোকেট জহির ভাইকে আসন্ন সাতকানিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকা প্রতিকে মনোনয়ন দান সময়ের দাবী -সাতকানিয়ার গোপালগঞ্জ খ্যাত সতিপাডার কৃতি সন্তান
অ্যডভোকেট জহির উদ্দিন বর্তমানে সাংগঠনিক সম্পাদক চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ এবং এপিপি চট্রগ্রাম জর্জকোট।
উনি কিশোর বয়স থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। ১৯৭৩ সালে সাতকানিয়া হাই স্কুলের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে মুজিববাদী ছাত্রলীগের প্যানেলে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মাধ্যমে সর্বপ্রথম নেতৃত্বের লড়াইয়ে অবতীর্ণ হন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার পর আওয়ামী লীগের চরম দুঃসময়ে সাতকানিয়া কলেজে জহির ভাইয়ের নেতৃত্বে সর্বপ্রথম বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে মিছিল বের হয় এবং ১৯৭৭ সালে সাতকানিয়া কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।
১৯৭৮ সালে সাতকানিয়া থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন, উক্ত কমিটির সভাপতি ছিলেন সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ- সভাপতি বাবু মৃদুল কান্তি দাশ। পরবর্তীতে ১৯৮০ সালে সাতকানিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন জহির ভাই উক্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাস্টার ফরিদুল আলম।
১৯৮৫ সালে এম ছিদ্দিক-বি এম ফয়েজুর রহমান কমিটিতে শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন।
১৯৯২ সালে কাউন্সিলর দের ভোটে সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলেও জোষ্ঠ্যতা বিবেচনায় বাদশা প্রফেসরকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে এম ছিদ্দিককে পুনরায় সভাপতি নির্বাচন করা হয়। উক্ত কমিটিতে অ্যাড. জহির উদ্দিন যুগ্ন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।
১৯৯৬ সালের শেষের দিকে তিনি সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং ২০০৪ সাল পর্যন্ত উক্ত পদে বহাল ছিলেন।
বর্তমান দক্ষিণ জেলা কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব নেয়ার আগে, অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকা আকতারুজ্জামান চৌধুরী -মোছলেম উদ্দিন আহমদ কমিটিতেও দপ্তর সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন। প্রয়াত নেতা আকতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু ভাই মারা গেলে উক্ত কমিটি আর অনুমোদন না দিয়ে বর্তমান জেলা কমিটি অনুমোদিত হয়। দীর্ঘদিনের
রাজনৈতিক অভিজ্ঞতায়
আশাকরি জহির ভাইয়ের সূযোগ্য নেতৃত্বে সাতকানিয়া পৌরএলাকার উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন হবে এবং এলাকার অবহেলিত নেতাকর্মীদের যথাযথ মূল্যায়ন হবে।

Check Also

বঙ্গবন্ধুর জন্ম ও সংক্ষিপ্ত পরিচিতি -লায়ন মোঃ আবু ছালেহ্

বঙ্গবন্ধুর জন্ম ও সংক্ষিপ্ত পরিচিতি -লায়ন মোঃ আবু ছালেহ্ স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *