1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : News Editor : News Editor
গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ঘর ও জমি না পেয়ে বৃদ্ধা রেনু বালা ফিরে পেলো ঘুষের ৬ হাজার টাকা - DeshBarta
রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৮:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
পটিয়া ৯৪ এর ফ্যামিলি মিলন মেলা ও মেজবান উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত খালিয়াজুরীতে ৯ই ডিসেম্বর বার্ষিক ঈসালে সাওয়াব মাহফিল শিশু আয়াত হত‍্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান – বঞ্চিত নারী ও শিশু অধিকার ফাউন্ডেশন দুমকি উপজেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল। গামছা পলাশ ও দিপা’র নতুন গান ‘চক্ষু দুটি কাজলকালো’ চট্টগ্রাম সিটি একাডেমি স্কুলের ক্লাস পার্টি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন  ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা তৃণমূলে প্রতিষ্ঠায় নির্মূল কমিটির অবদান অনস্বীকার্য’ বাঁশখালী সম্মেলনে ড.সেকান্দর চৌধুরী দাকোপ রিপোর্টার্স ক্লাবের উপ নির্বাচনে কোষাধ্যক্ষ পদে অরুপ সরকার নির্বাচিত। মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে মসজিদে বয়স্কদের কোরআন শিক্ষা কোর্সের উদ্ভোধন মরহুম নুরুল ইসলাম ডিসি ফুটবল একাদশ ৩-১ গোলে জয়ী

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ঘর ও জমি না পেয়ে বৃদ্ধা রেনু বালা ফিরে পেলো ঘুষের ৬ হাজার টাকা

  • সময় মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট, ২০২২
  • ৩৮ পঠিত

আমিরুল ইসলাম কবিরঃ

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ভূমিহীন ও গৃহহীন বৃদ্ধা রেনু বালা মহন্ত (৭৫)’কে আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘর ও জমি দেয়ার কথা বলে ঘুষ নেয়া ৬ হাজার টাকা নিয়ে অবশেষে ফেরত দিলো উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল। ৮ আগষ্ট/২২ সোমবার সন্ধ্যায় নিজ অফিসে ভুক্তভোগীদের চাপের মুখে স্থানীয় সর্বসাধারণ ও গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে উক্ত টাকা ফেরত দেন তিনি।

ভুক্তভোগী ও উপস্থিত জনসাধারণ সূত্রে জানা যায়, পলাশবাড়ী পৌর এলাকার গৃধারীপুর গ্রামের বাসিন্দা মৃত সুনীল চন্দ্র মহন্ত এর বিধবা স্ত্রী দীর্ঘদিন হলো কন্যা ও ছেলে নাতি নাতনীসহ মেথর পট্টি এলাকায় অন্যের জমিতে ভাঙ্গা চুড়া ঘরে বসবাস করে আসছিলেন। বর্তমান সময়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প এর আওতায় রেনু বালা মহন্ত ঘর ও জমি পাওয়ার আশায় ভূমি অফিসের সুইপার শ্যামলের মাধ্যমে ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিলকে ৬ হাজার টাকা দেন। টাকা দেওয়ার পর কয়েক মাস পেরিয়ে গেলেও বৃদ্ধা রেনু বালা ঘর ও জমি না পেয়ে দিনের পর দিন ঘুরতে থাকেন। এরপর টাকা ফেরত চাইলে ইব্রাহিম খলিল নানাভাবে আজ নয় কাল করে তালবাহানা এবং হুমকি ধামকি ও নানাভাবে ভয়ভীতি দেখান। এতে উপায় অন্তর না পেয়ে অবশেষে ভুক্তভোগী বৃদ্ধা নারী তার ২ ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারি সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিলের অফিসে এসে টাকা ফেরত নেয়ার জন্য ইব্রাহিম খলিলের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন।

এরপর স্থানীয়রা উপস্থিত হলে তারা বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান,এরপর সাংবাদিকগণ ভূমি অফিসে উপস্থিত হয়ে বিষয়টির ভুক্তভোগীদের কাছে জানতে চাইলে তরিঘড়ি করে সাংবাদিকদের সামনে বৃদ্ধা রেনু বালা মহন্তের হাতে বাকি ৪ হাজার টাকা ফেরত দেন সহকারি সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল। এসময় রেনু বালা মহন্তের ২ ছেলে নিরু চন্দ্র মহন্ত (৪০) ও বিরু চন্দ্র মহন্ত (৪২) উপস্থিত ছিলেন৷

অফিসের সুইপার শ্যামল চন্দ্র সার্ভেয়ার ইুব্রাহিম খলিলের সামনে সাংবাদিকদের বলেন,ইব্রাহিম খলিল স্যারের নির্দেশে উক্ত বৃদ্ধার নিকট হতে টাকা নিয়ে এসে তাকে দিয়েছি।

টাকা নিয়ে ফেরত দেয়ার ও বৃদ্ধা রেনু বালা মহন্তের নিকট হতে টাকা গ্রহনের বিষয়ে ক্যামেরার সামনে অস্বীকার করেন সহকারি সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুজ্জামান নয়ন বলেন,ভুক্তভোগীদের নিকট হতে টাকা গ্রহনের বিষয়ে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এদিকে,রেনু বালা মহন্ত ও তার ২ ছেলে নিরু ও বিরু চন্দ্র মহন্ত বলেন,দীর্ঘদিন হলো ঘর ও সরকারি জমি পাওয়ার আশায় ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিলকে টাকা দিয়েও ঘর ও জমি না পাওয়ায় প্রদানকৃত টাকা ফেরত দিতে নানা তালবাহানা,হুমকি ধামকি নানা ভয়ভীতি দেখাতো সে। এর আগে ২ হাজার টাকা ফেরত দেয় আজ সন্ধ্যায় এসে বাকি ৪ হাজার টাকা ফেরত চাইলে ইব্রাহিম খলিল আমাদের গালাগালিজ করে এতে আমরাও তার কথার প্রতিবাদ করলে তার সাথে বাকবিতন্ডা শুরু হলে উপস্থিত অন্যান্যদের খবরে আপনারা সাংবাদিকরা আসলেন। এরপর সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল অবস্থা বেগতিক দেখে আপনাদের সামনে আমাদের হাতে বাকি ৪ হাজার টাকা ফেরত দিলো৷

উল্লেখ্য,আশ্রয়ণ প্রকল্প এর আওতায় তৃতীয় পর্যায়ে পলাশবাড়ী উপজেলায় ১’শ ৪০ জন সুবিধাভোগী পরিবারকে ঘর ও ২ শতাংশ করে জমি প্রদান কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এসব ঘর নির্মাণাধীন থাকায় ও বর্তমান সময়ে সুবিধাভোগীদের নাম প্রকাশ হওয়ায় সুবিধা বঞ্চিতরা তাদের প্রদানকৃত টাকা না পেয়ে বর্তমানে মুখ খুলছেন। এসব ঘর ও জমি প্রদানে একাধিক বঞ্চিত ভুক্তভোগীদের নিকট হতে সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল টাকা নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল সহ অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তাদের টাকা না দিলে ভূমি সংক্রান্ত কোন কাজ হয় না। এসব কাজে তাদের চাহিদা মতো টাকা না দিলে দিনের পর দিন ঘুরতে হয় নানা অজুহাত দেখায় এমন অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী একাধিক সাধারণ মানুষ ও গণমাধ্যমকর্মী। ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ইব্রাহিম খলিল সহ অন্যান্যদের অনিয়ম ও দূর্নীতি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানান ভুক্তভোগী মানুষ ও উপজেলার সচেতন মহল।√#

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD