1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : News Editor : News Editor
দাকোপে ভারপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ দুর্নীতির অভিযোগ - DeshBarta
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ইস্ট ডেল্টা এনএস গার্ডেন প্রকল্পের নির্মাণ কাজের উদ্বোধনঃ মধ্যবিত্তের আয়ত্তে মিলছে স্বপ্নের ফ্ল্যাট নূরানী পাড়া সমাজ কল্যাণ পরিষদের দ্বিবার্ষিক কার্যকরী পরিষদ গঠিত পটিয়ায় পাউবো’র ১১শ ৫৮ কোটি টাকার প্রকল্প উদ্ভোধন করলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী চকবাজারে দিনে দুপুরে তালা কেটে সাংবাদিকের বাসায় দুধর্ষ চুরি। প্রধানমন্ত্রীর চট্টগ্রামের জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিণত করা হবে – মুহাম্মদ বদিউল আলম ইতিহাসবেত্তা সোহেল ফখরুদ-দীনের বাসভূমি পুরস্কার লাভ এস. আলম গ্রুপ দেশের উন্নয়নে, মানুষের কল্যানে নিয়োজিত। লোহাগাড়া প্রবাসী সমিতি,সৌদি আরব’র ৪র্থ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন চন্দনাইশে ডিজিটাল মেলা উদ্বোধন করলেন নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি “সিজল”র শান্তিরহাট শাখার শুভ উদ্ভোধন

দাকোপে ভারপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ দুর্নীতির অভিযোগ

  • সময় মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২২
  • ২৭ পঠিত

জুলফিকার আলী,দাকোপ প্রতিনিধিঃ

দাকোপে সহকারি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম ও উচ্চমান সহকারী আলী একরামের বিরুদ্ধে ঘুষ দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এবিষয়ে প্রতিকার চেয়ে এক প্রধান শিক্ষক খুলনা বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, জাহাঙ্গীর আলম ভারপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দায়িত্ব পালনকালে উচ্চমান সহকারী আলী একরামের সাথে যোগসাজসে ২০২১-২২ অর্থ বছরে বিভিন্ন বিদ্যালয়ে বরাদ্দ হতে শিক্ষকদের মানসিক চাপ সৃষ্টি করে ঘুষ নিয়েছেন। যেমন ২ লাখ টাকা মাইনর মেরামত খাতে বরাদ্দ হতে বিদ্যালয় প্রতি ২০ হাজার টাকা, স্লিপ, প্রাকের উপকরণ ক্রয় বাবদ সিএসএস আর বরাদ্দ হতে বিদ্যালয় প্রতি ৬ হাজার টাকা, রুটিন মেনটেনেন্স ৪০ হাজার টাকার খাত হতে ৫ হাজার টাকা, এসিআর বাবদ শিক্ষক প্রতি ৫০০ টাকা ঘুষ নিয়েছেন। এ ছাড়া জাতীয়করণকৃত ১১ জন শিক্ষকের ইএফটি বেতন কোন আদেশ ছাড়া কর্তন করেন। পরে হাইকোর্টের আদেশে পুনরায় বেতন দেন। এসময়ে বিগত ৬ মাসের বকেয়া বিল দেওয়ার জন্য ৯ জন শিক্ষকের কাছ থেকে ১ লাখ ৪৫ হাজার টাকা এবং একই অর্থ বছরে বিনোদন ভাতা বাবদ প্রতি শিক্ষকের কাছ থেকে ১ হাজার টাকা ঘুষ নেন।

এঘটনার প্রতিকার চেয়ে উপজেলার ফকিরডাংগা ডিএফসি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনোজ কুমার মন্ডল গত কয়েক দিন আগে খুলনা বিভাগীয় উপপরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানান।

উচ্চমান সহকারী আলী একরাম বলেন, এবিষয়ে আমার বলার কিছু নেই। তবে আমি কোন টাকা নেয়নি।

সহকারি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, কার কাছে কি অভিযোগ দিয়েছে আমার জানা নেই। তবে আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সঠিক নয়।

এবিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন্ত পোদ্দার বলেন, বিষয়টি আমার যোগদানের আগের ঘটনা। তবে আমি যোগদানের পর ঘুষ লেনদেনের ঘটনাটি শিক্ষকদের কাছ থেকে মৌখিক ভাবে শুনেছি।

এব্যাপারে খুলনা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপপরিচালক মোঃ মোসলেম উদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পেলে এঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD