1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : News Editor : News Editor
পবিত্র ঈদুল আযাহাকে সামনে রেখে চকরিয়ার কামারশালায় টুং টাং শব্দে মূখরিত - DeshBarta
সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৩:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ফুটবল খেলার উন্মাদনায় ব্যস্ত যখন সবাই,সে সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে গরু লুট পটিয়া ৯৪ এর ফ্যামিলি মিলন মেলা ও মেজবান উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত খালিয়াজুরীতে ৯ই ডিসেম্বর বার্ষিক ঈসালে সাওয়াব মাহফিল শিশু আয়াত হত‍্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান – বঞ্চিত নারী ও শিশু অধিকার ফাউন্ডেশন দুমকি উপজেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল। গামছা পলাশ ও দিপা’র নতুন গান ‘চক্ষু দুটি কাজলকালো’ চট্টগ্রাম সিটি একাডেমি স্কুলের ক্লাস পার্টি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন  ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা তৃণমূলে প্রতিষ্ঠায় নির্মূল কমিটির অবদান অনস্বীকার্য’ বাঁশখালী সম্মেলনে ড.সেকান্দর চৌধুরী দাকোপ রিপোর্টার্স ক্লাবের উপ নির্বাচনে কোষাধ্যক্ষ পদে অরুপ সরকার নির্বাচিত। মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে মসজিদে বয়স্কদের কোরআন শিক্ষা কোর্সের উদ্ভোধন

পবিত্র ঈদুল আযাহাকে সামনে রেখে চকরিয়ার কামারশালায় টুং টাং শব্দে মূখরিত

  • সময় বুধবার, ৬ জুলাই, ২০২২
  • ৬৫ পঠিত

জেপুলিয়ান দত্ত জেপু,চকরিয়াঃ

চকরিয়ায় পবিত্র ঈদুল আযাহাকে সামনে রেখে চকরিয়ার কামাড় পাড়ায় টুং টাং শব্দে মূখরিত। চকরিয়ার পৌরশহর সহ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের মুসলিম সম্প্রদায়ের লোক এখন কামাড় পাড়ায় কোরাবানি ঈদের পশু জবাইয়ের ধাতব সরন্জামাদি তৈরি করে নিচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,চকরিয়া উপজেলার পৌরশহরের ওয়াপদা রোডে র কামারশালায় ভীড়। ভীড় এড়িয়ে কামারশালায় দেখা গেছে কর্মকারদের ব্যাস্ততা। এসময় তারা গ্রাহকদের সাথে কথোপকথনে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে।

চকরিয়ার ওয়াপদা রোডের বাদল কর্মকারের কামারশালায় গিয়ে কথা বলে জানা গেছে,লোহার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এবার আগের তুলনায় ধাতব দা,বটি,ছুরি ইত্যাদির দামও একটু বেড়েছে। মধ্যম মানের লোহার তৈরি দা,বটি,ছুরির দাম কেজি প্রতি ৪৫০ টাকার মধ্যে। তবে রেল লাইনের বিট দিয়ে তৈরি ব্যবহৃত ধাতব যন্ত্রপাতির মূল্য অনেকটা বেশি। এ ধরণের ধাতব দা,বটির দাম ধরা হয়েছে কেজি প্রতি ৫৫০ টাকা।

এদিকে, গ্রাম্য কামারশালায়ও কোরবানির পশু জবাইয়ে ব্যবহৃত ধাতব দা,বটি ও ছুরি নির্মাণের ধুম পড়েছে। সারা রাতভর কর্মকারেরা নির্ঘুম রাত কাটিয়ে এ সব যন্ত্রপাতি নির্মাণে ব্যস্ত সময় পার করছে। গ্রামের সাধারণ মানুষ প্রতিনিয়ত কামারশালায় ভীড় জমাচ্ছে পশু জাবাইয়ের সরন্জামাদি তৈরির জন্য।
দগ্ধ চুল্লিতে লোহা গলিয়ে পিটিয়ে মনোমত সাইজ করে এসব ধাতব যন্ত্রপাতি তৈরির পর ওজন করে নিয়ে দাম নির্ধারণ করা হয়। এ সময় কামারশালার চারপাশে রাতদিন টুং টাং শব্দে মূখরিত সমগ্র এলাকা।

অনেকে পুরানো লোহা ও ব্যবহৃত পুরানো দা বা বটি সমন্বয় করে নিয়ে নতুন করে দা, বটি,ছুরি তৈরি করে নিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে গ্রাহকদের অনেক কম মূল্য দিতে হচ্ছে।

সব মিলিয়ে কর্মকার পেশার লোকগুলো অর্থনৈতিক ভাবে তেমন ভাল নেই। বছরের এ মৌসুমে কামারদের দিন ভাল কাটলেও সারা বছর দিন কাটাতে হয় অভাব-অনটনের মধ্য দিয়ে। সরকারি ভাবে কোনো সুযোগ সুবিধা পেলে তাদের অভাব মোছন হবে বলে জানালেন স্থানীয় কর্মকার সম্প্রদায়ের লেকেরা।

ভারী শিল্প লোহার দাম বৃদ্ধির ফলে কর্মকার নির্মিত দা,বটি,ছুরি,পেষন বাটি,যাতাকল ও বিভিন্ন সরল যন্ত্র তৈরিতে খরচ পড়ে বেশি। এ খরচ পুষিয়ে নিতে ধাতব পণ্যের মূল্য বেশি নির্ধারণ করায় অনেক গ্রাহক পুরোন ব্যবহৃত দা, বটি ও ছুরি শান দিয়ে ব্যবহার উপযোগী করে নিচ্ছে। এতে কর্মকারদের লোকসান গুণতে হবে অনেকটা।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD