1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : News Editor : News Editor
শিবগঞ্জ চর জগন্নাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান। - DeshBarta
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:২১ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
চন্দনাইশে ডিজিটাল মেলা উদ্বোধন করলেন নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি “সিজল”র শান্তিরহাট শাখার শুভ উদ্ভোধন “মুক্ত পাঠাগার” এর চট্টগ্রাম জেলা শাখার উদ্যোগে ১ম লেখক আড্ডা বাকলিয়ায় ২২ নং বিট পুলিশ ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা খায়রুল বশর’র দাফন সম্পন্ন পটিয়ায় কৃষি উৎপাদন বাড়াতে এবার কৃষকদের পাশে দাঁড়ালেন ড.জুলকারনাইন চৌধুরী জীবন অসীক দত্তকে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির চত্বরে বিশাল সংবর্ধনা। পটুয়াখালীর ওজোপাডিকোর দুর্নীতি বহুতলা ভবনে ১১ কেভি বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগ। একাধিক ডাকাতি মামলার আসামী চোলাই মদসহ গ্রেফতার ফুটবল খেলার উন্মাদনায় ব্যস্ত যখন সবাই,সে সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে গরু লুট

শিবগঞ্জ চর জগন্নাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান।

  • সময় রবিবার, ৬ নভেম্বর, ২০২২
  • ৫০ পঠিত

শরিফুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ

চর জগন্নাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে শিক্ষাকার্যক্রম। ক্লাস পরিচালনার অনুপযোগী হওয়া স্কুল ভবনে পাঠদান চলায় আতঙ্কে শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী।

এমন চিত্র দেখা যায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিবগঞ্জ উপজেলার দুর্লভপুর ইউনিয়নের চর জগন্নাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে। সরেজমিন দেখা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলার চর জগন্নাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ভাল মানের কোন ভবন নাই। অফিস কক্ষ এবং শ্রেনিকক্ষ মিলিয়ে মোট ৫/৬ টি পুরাতন ঘরে চলছে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম। আবার ঐ সব ঘরের অনেক স্থানে ছাদ ও ভিমে ফাটল রয়েছে। ১২ জন শিক্ষক ও প্রায় ৩০০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে এই বিদ্যালয়ে।শিক্ষক ও এলাকাবাসী জানান, চর অঞ্চলের নদী ভাঙ্গন এলাকার মানুষের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে ১৯৭৭ সালে বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় এবং ১৯৯৩ সালে নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে বিদ্যালয়টিকে পূনরায় কোনরকম দাঁড় করানো হয়। সিনিয়র শিক্ষক আজমল হোসেন জানান, অফিস এবং শ্রেনিকক্ষগুলোর বিভিন্ন জায়গায় ফাটল দেখা দিয়েছে ছাদের কিছু অংশ খসে পরছে এখন এই অবস্থায় আমাদের ক্লাস নিতে হচ্ছে। শিক্ষক সায়িদা আখতারের কাছে জানতে চাইলে বলেন, ‘শিক্ষার্থীসহ আমাদের মধ্যে তো ভয় কাজ করে। ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও ক্লাস নিতে হয়।
কয়েকজন অভিভাবকের সাথে আলাপ করে জানা যায় এই অবস্থায় পাঠদান খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। স্কুলে সন্তানদের পাঠিয়ে অভিভাবকদের এক অজানা আতঙ্কে থাকতে হয়।বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোহাঃ সেলিম রেজা জানান , ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে এখনো পাঠদান চলছে। আমরা সবসময় একটা আতঙ্কে থাকি।অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ বলেন, বিদ্যালয়ের ঘরগুলো ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় পাঠদান সহ অফিস কার্যক্রম পরিচালনা করা খুব ঝুঁকিপূর্ণ। তিনি আরও জানান যে, সরকারি অনুদান বরাদ্দের আশ্বাস থাকলেও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে কোনো বরাদ্দের টাকা আসেনি।তিনি আরও বলেন যে,জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা বিদ্যালয় পরিদর্শন করে অবগত হয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল হায়াত বলেন আমি বিষয়টা জানতে পেরেছি এবং প্রধান শিক্ষককে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সহযোগীতা করার আশ্বস্ত করেছি।

 

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD