1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : News Editor : News Editor
সাত বছরের শিশু ধর্ষণ পাষন্ড ধর্ষককারী ইউসুফ আটক। - DeshBarta
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন

সাত বছরের শিশু ধর্ষণ পাষন্ড ধর্ষককারী ইউসুফ আটক।

  • সময় সোমবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৩৮ পঠিত

মোহাম্মদ জুবাইর

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় ০৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় পাষন্ড ধর্ষণকারী মোঃ ইউসুফ (৪৭) র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম কর্তৃক গ্রেফতার।

“বাংলাদেশ আমার অহংকার” এই স্লোগান নিয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জোড়ালো ভূমিকা পালন করে আসছে। র‌্যাব সৃষ্টিকাল থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে। র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, দুর্ধষ চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনি, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতার এবং বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ ও মাদক উদ্ধারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

ভুক্তভোগী ধর্ষীতা ০৭ বয়সী শিশু ভিকটিম এবং মাদ্রাসায় প্রথম শ্রেনীতে পড়ুয়া একজন ছাত্রী। সে প্রতিদিনের ন্যায় গত ০৬ ডিসেম্বর ২০২২ইং তারিখ মাদ্রাসায় যায় এবং ঐদিন দুপুরে মাদ্রাসা থেকে ফিরে বাড়ীর সামনে আসলে তখন তাদের আত্মীয়/প্রতিবেশী মোঃ ইউসুফ ভিকটিমকে মাদ্রাসার ব্যাগ বাসায় রেখে তার কাছে আসতে বলে। ইউসুফের কথামতো শিশু ভিকটিম বাসায় ব্যাপ রেখে তার কাছে আসে। তখন ইউসুফ তাকে আচার, চকলেট এবং টাকাসহ বিভিন্ন জিনিস দিবে বলে ফুসলিয়ে তার বাড়ীর পাশে শঙ্খ নদীর ধারে একটি ঝোপের ভিতর নিয়ে যায়, সে সময় শিশু ভিকটিম চিৎকার করলে ইউসুফ তার মুখ চেপে ধরে এবং বলে চিৎকার করলে একদম মেরে ফেলবো বলে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে ইউসুফ শিশু ভিকটিমকে আচার, চকলেট এবং ১০ টাকার একটি নোট হাতে দিয়ে বাড়ী চলে যেতে বলে। উল্লেখ্য যে, ধর্ষণকারী ইউসুফ শিশু ভিকটিমকে ধর্ষণপূর্বক বাড়ীতে যেতে বলে এবং এরুপ হুমকি প্রদান করে যে, সে যদি উক্ত ঘটনার কথা কাউকে বলে তাহলে ভিকটিমসহ তার পরিবারের সবাইকে হত্যা করবে।

পরবর্তীতে ভিকটিম বাড়ীতে আসলে তার শরীরে প্রচন্ড জ্বর ও অসুস্থতা দেখে তার মা তাকে হঠাৎ এমন অসুস্থ হওয়ার কথা জনতে চায়। তখন ভিকটিম তার মাকে উপরে উল্লেখিত ধর্ষণের কথা এবং তার রক্তক্ষরণ হচ্ছে বলে জানায়। তখন ভিকটিমের মা তাকে দ্রæত দোহাজারী সরকারী সাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার শরীরিক অবস্থা খারাপ দেখে দ্রæত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। বর্তমানে ধর্ষিতা শিশু ভিকটিম চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান স্টপ ইমারজেন্সি সার্ভিস সেন্টারে চিকিৎসাধীন।
উক্ত ঘটনায় ভিকটিমের মা বাদি হয়ে মোঃ ইউসুফ’কে আসামী করে গত ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ইং তারিখ চট্টগ্রাম জেলার সাতকানিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০২০ (সংশোধিত ২০২০) এর ৯ (১) ধারায় একটি মামলা করে, যার মামলা নং-০৪, তারিখ ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ ইং

৫। বর্ণিত মামলাটি রুজু হওয়ার পর থেকে ঘটনার সাথে জড়িত আসামী ইউসুফকে গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ছায়াতদন্ত ও গোয়েন্দা নজরদারী শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর একটি আভিযানিক দল অদ্য ১২ ডিসেম্বর ২০২২খ্রিঃ তারিখ রাত আনুমানিক ০৩০০ ঘটিকায় ফেনী জেলার ফেনী মডেল থানাধীন চট্টগ্রাম টু ঢাকাগামী মহাসড়কের রামপুরস্থ র‌্যাব-৭, ক্যাম্পের বিপরীত পার্শ্বে পাকা রাস্তার উপর বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে উক্ত ধর্ষণ মামলার এজাহার নামীয় একমাত্র আসামী পাষন্ড ধর্ষণকারী মোঃ ইউসুফ (৪৭), পিতা- মৃত সোনা মিয়া, সাং- গণিপাড়া, থানা- সাতকানিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম’কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে সে উপরে উল্লিখিত নাবালিকা শিশু ভিকটিমিকে ধর্ষণের কথা অকপটে স্বীকার করে।

গ্রেফতারকৃত আসামী সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে চট্টগ্রাম জেলার সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD