1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
চিকিৎসা প্রতারণায় রিজেন্ট-জেকেজিকেও হার মানিয়েছে হাইপোথাইরয়েড সেন্টার! মৃত ডাক্তারের স্বাক্ষরে রিপোর্ট - DeshBarta
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় চট্টগ্রাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট (চপই) ছাত্রদলের দোয়া মাহফিল” দুমকিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষের অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ করোনার দুর্দিনে ক্ষুধার্ত মানুষের জন্য মাসব্যাপী বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার সোসাইটি ইফতার আয়োজন যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামকে রেড ক্রিসেন্ট সিটি ইউনিটের অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান ২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট ও দোকানপাট খুলে দেওয়ার দাবি দোকান মালিক সমিতির কবিতাঃ “মাহে রমজান ” মোঃ জসীম উদ্দিন চৌধুরী গ্রেফতার হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক বাঁশখালীর কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্পের হত্যা কান্ডের সাথে এস আলম গ্রুপ দায়ী নয়, মাফিয়া সিণ্ডিকেট-ই দায়ী। শ্রমিকের পারিশ্রমিক (মজুরি) তার ঘাম শুকানোর পূর্বে দিয়ে দাও”— মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) চিত্র নায়ক ওয়াসিম আর নেই।

চিকিৎসা প্রতারণায় রিজেন্ট-জেকেজিকেও হার মানিয়েছে হাইপোথাইরয়েড সেন্টার! মৃত ডাক্তারের স্বাক্ষরে রিপোর্ট

  • সময় রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ২২২ পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি —
কোন প্রকার ল্যাব পরীক্ষা ছাড়াই ভুয়া রিপোর্ট প্রদান এটি নতুন ঘটনা নয়। শুধু ঢাকা নয় চট্টগ্রামেও আছে এমন অনেক ল্যাব যারা অনুমান নির্ভর রিপোর্ট প্রদান করে। অনেক ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের স্বাক্ষর ল্যাব সহকারী করে থাকে। আবার বাইরে থেকে পরীক্ষার রিপোর্ট এনে নিজেদের বলে চালিয়ে দেয়। যা সঠিক ভাবে তদন্ত করলে বেড়িয়ে আসবে অনেক ভয়াবহ চিত্র। এদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা জরুরী।সম্প্রতি করোনা রিপোর্ট নিয়ে রিজেন্ট-জেকেজিতে ঘটেছে এমন ভয়াবহ ঘটনা। কিন্তু এর রেশ কাটতে না কাটতে খোদ রাজধানীতেই ঘটল আরেক ভয়াবহ ঘটনা।
রাজধানীর শ্যামলীতে হাইপোথাইরয়েড সেন্টার নামে একটি ল্যাবে অভিযানে বেরিয়ে এসেছে অনিয়মের ভয়াবহ চিত্র। যা রীতিমত আঁতকে উঠার মত। একি চিকিৎসার হাল! মৃত চিকিৎসকের নামে স্বাক্ষর দিয়ে মাসের পর মাস রোগীদের দেওয়া হতো ভুয়া রিপোর্ট। এমনকি চিকিৎসকের রিপোর্টে স্বাক্ষর দিতো গাড়ির ড্রাইভার। গত পাঁচ বছর যাবত হাইপোথাইরয়েড সেন্টার ল্যাবের ভয়ংকর প্রতারণার শিকার হচ্ছেন রোগীরা। ১০ বছর ধরে থাইরয়েড, হেপাটাইটিসের মতো পরীক্ষার ল্যাব পরিচালনা করলেও সক্ষমতা নেই বললেই চলে।
গতকাল শনিবার ৭ নভেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টায় শ্যামলী স্কয়ারের বিপরীতে ২/১ নম্বর বাড়ির হাইপোথাইরয়েড সেন্টারে অভিযান চালান র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। অভিযানে সোহেল রানা ও রানা নামে ওই প্রতিষ্ঠানের দুই কর্মচারীকে দুই বছর করে কারাদণ্ড ও প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দিয়েছে র‌্যাব। তবে মালিক আবদুল বাকের পলাতক। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম।
প্রতারণায় রিজেন্ট কিংবা জেকেজিকেও হার মানিয়েছে এই ল্যাবটি। এখানে থাইরয়েডের নানা রিপোর্টসহ হেপাটাইটিস, ব্লাড কালচারসহ চলতো নানা পরীক্ষা। রিপোর্ট দিতে ব্যবহার করতো নামি চিকিৎসকের নাম। সর্বশেষ অধ্যাপক মনিরুজ্জামানের স্বাক্ষরে গত অক্টোবরে রিপোর্ট দেওয়া হলেও এই চিকিৎসক করোনায় প্রাণ হারান মে মাসের প্রথম সপ্তাহে। এছাড়া আরো মিলেছে চিকিৎসকের স্বাক্ষর করা অসংখ্য ভুয়া রিপোর্ট।
হাইপোথাইরয়েড সেন্টারে কর্মরত কর্মচারীরা বলছেন, দুই একটা টেস্ট করা হলেও বাকিগুলো দেওয়া হতো অনুমান করে। কিছু কিছু টেস্ট করা হতো। তবে সবগুলোর করা হতো না। হাইপোথাইরয়েড সেন্টার দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে কুরিয়ারে স্যাম্পল সংগ্রহ করে মেইলে রিপোর্ট দিতো।
র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম জানান, বিগত ৫ বছরে কোনো প্রফেসর যথাসম্ভব এখানে বসেইনি। তার মানে এযাবত কালে দেওয়া সবগুলো রিপোর্টই ভুয়া। তারা চিকিৎসকদের নামে অগ্রিম সাক্ষর নিয়ে রাখতো। আজব ব্যাপার হলো অন্য হাসপাতালে অভিযান চালানোর সময় দেখেছি চিকিৎসকের পরিবর্তে টেকনিশিয়ানরা সাক্ষর করতো। কিন্তু এখানে গাড়ির ড্রাইভাররাও সাক্ষর করে দিচ্ছে। এই প্রতিষ্ঠান হার মানিয়েছে রিজেন্ট কিংবা জেকেজিকেও। ১০ বছর ধরে ল্যাব পরিচালনা করছে হাইপোথাইরয়েড সেন্টার। থাইরয়েডের নানা রিপোর্টসহ হেপাটাইটিস, ব্লাড কালচারসহ চলতো নানা পরীক্ষা। অথচ সেই ল্যাবের বেহাল দশা।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD