1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
কেন্দ্রীয় যুবলীগের উপ ক্রীড়া সম্পাদক আব্দুর রহমান এর মিথ্যা বায়োডাটা দিয়ে পদবী বাগিয়ে নেওয়ার জন্য পটিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর গোফরান রানার চ্যালেঞ্জ ও তাহাকে সহযোগিতা কারীদের শাস্তির দাবী। - DeshBarta
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
আজ প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জম্মদিনে শুভ কামনায় বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সীতাকুন্ড রামগড়ে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম শুভ জন্ম দিন পালন বাঁশখালীতে প্রাইভেট কারে ইয়াবা:গ্রেপ্তার-৪ পবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন দক্ষিনাঞ্চের স্বপ্নের পায়রা সেতু খুলে দিলে বন্ধ হয়ে যাবে ফেরি চলাচ্ল। প্রবাসী সমাজ কল্যাণ সমিতি চট্টগ্রামের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন। বাঁশখালীতে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫ তম জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেলের এপ্রোচ রোড ম্যানেজমেন্ট বিষয়ক কমিটির সভা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের ৪১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ গহিরা মাইজপাড়া উত্তর ইউনিট শাখার অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন।

কেন্দ্রীয় যুবলীগের উপ ক্রীড়া সম্পাদক আব্দুর রহমান এর মিথ্যা বায়োডাটা দিয়ে পদবী বাগিয়ে নেওয়ার জন্য পটিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর গোফরান রানার চ্যালেঞ্জ ও তাহাকে সহযোগিতা কারীদের শাস্তির দাবী।

  • সময় রবিবার, ২২ নভেম্বর, ২০২০
  • ৭৮০ পঠিত

অনলাইন ডেস্কঃ

ফেইসবুক ওয়াল হতে-

সম্প্রতি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি পুর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে, যা আমরা বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়, বিভিন্ন চ্যানেলে আমরা দেখেছি এবং আনন্দিত হয়ে সমগ্র দেশে সকল স্তরের নেতারা অভিনন্দন জানিয়েছেন । কিন্তু আবদুর রহমান নামের এক ব্যক্তি যার বাড়ি চট্রগ্রাম দক্ষিন পটিয়া পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড়ের বাহুলী গ্রামে । আমি আওয়ামী পরিবারের সন্তান হলে ও ১৯৯০ সাল হতে আমি সক্রিয় রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। আবদুর রহমান ১৯৯১ সালে পটিয়া আবদুস সোবহান রাহাত আলী উচ্চ বিদ্যালয় হতে এস,এস,সি পাস করে এবং পটিয়া সরকারী কলেজে এইস,এস,সি তে ( বাণিজ্য বিভাগে ভর্তি হয় ও ১৯৯৫ সালে বি কম পাস করে । আমি ও ১৯৯২ সালে পটিয়া সরকারী কলেজে বাণিজ্য বিভাগে ভর্তি হই এবং ছাত্রলীগ করতে গিয়ে তৎকালীন ছাত্রদলের নেতাদের হাতে আমরা দুইভাই অনেক নির্যাতিত হই । অামি ছাত্ররাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে ও জড়িত ছিলাম, বিশেষ করে শিশু সংগঠন কুসুম কলির আসরের সাথে সম্পৃক্ত থেকে নিজের পরিচিত লাভ করি। ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত প্রত্যেকটি আন্দোলন সংগ্রামে মিছিল মিটিং এর অগ্রভাগে ছিলাম, এবং ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৬ সালের ৩ জুলাই আমি পটিয়া সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের আহবায়ক নির্বাচিত হয়ে ছাত্রদলের দখলে থাকা পটিয়া সরকারী কলেজ ক্যাম্পাস অনেক রক্তের বিনিময়ে আমরা গুটি কয়েক ( ১২ থেকে ১৫ জন ছাত্রনেতা) মিছিল সহকারে পটিয়া কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করি। বাকী গুলি ইতিহাস! পরবর্তীতে আমি পটিয়া পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং ২০০৩ সালে পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হলাম । এই সময় গুলোর মধ্যে অনেক আন্দোলন সংগ্রাম তো রাজপথে হয়েছে! সেই মিছিলে অন্যদের মত আমি নগন্য একজন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ভক্ত আমি ও অগ্রভাগে ছিলাম । কই কখন ও তো শুনিনি, দেখিনি আবদুর রহমান নামে কেই ছাত্রলীগ করত? আমি আমি তো তখন ছাত্রলীগের মুল নেতা ছিলাম। কই আমি জানি সে ছাত্রদল করত? তার পরিবারের সকলেই বি,এন,পি , জামাতের রাজনীতি করত? তার চাচা প্রফেসর শফি স্যার সহ পরিবারের সকলে বি এন পি, এবং জামাত সমর্থক রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন?! রহমান তো আওয়ামীলীগের ধারার রাজনীতি কখন ও করত না? পরবর্তীতে টি,কে গ্রুপে চাকরী করত বলে শুনেছিলাম এবং কিছুদিন পর শুনলাম টি কে গ্রুপের বিশাল অংকের টাকা লুটপাট করে অাত্নগোপনে ঢাকায় আমাদের দলীয় এক নেতার আশ্রয়ে ছিলেন! তবে সেই নেতার ঢাকার বাসায় পটিয়ার তৎকালীন ছাত্রশিবিরের অনেক মামলার আসামী ও ছিলেন !? যা অনেকেই জানেন?
কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে আমার জানতে ইচ্ছে করছে এই রহমানেরা যে ছাত্রলীগ করেছে তার কি কোন তথ্য আপনাদের কাছে আছে ? কি ভাবে রহমানদের মত নেতারা মাঠ পর্যায়ে কোন রাজনীতি না করে ও কোন ক্ষমতার বলে পদ পদবী পাই? যেখানে অনেক নির্যাতিত নেতারা স্হান পান নি? তাদের ক্ষমতার উৎস কোথায়? তাদের পদের জন্য যারা সুপারিশ করেছে তারা কারা? তাই কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে সবিনয়ে অনুরোধ তার সম্পর্কে তদন্ত করা হউক? আসলে আবদুর রহমান কোন দল করতেন? তাদের ফুল দিয়ে, নেতার বাসায় গিয়ে যারা অভিনন্দন জানায় তাদের কাছে ও আমাদের প্রশ্ন আবদুর রহমান কোন দল করতেন? তা ডকোমেন্ট সহ আমরা মুজিব প্রেমিরা দেখতে চাই ! এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের যারা ভুল তথ্য দিয়েছেন তাদের ও শাস্তি দাবি করছি।
পরিশেষে বলতে চাই, আমার কথাই যদি সত্য প্রমানীত হয় তবে যেন তাকে তার পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয় সেই দাবি জানাচ্ছি।

গোফরান রানা,
সহ সভাপতি, পটিয়া পৌর আঃলীগ,

কাউন্সিলর – পটিয়া পৌরসভা, চট্টগ্রাম।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD