1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে মৎস্য হ্যাচারী - DeshBarta
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় চট্টগ্রাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট (চপই) ছাত্রদলের দোয়া মাহফিল” দুমকিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষের অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ করোনার দুর্দিনে ক্ষুধার্ত মানুষের জন্য মাসব্যাপী বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার সোসাইটি ইফতার আয়োজন যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামকে রেড ক্রিসেন্ট সিটি ইউনিটের অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান ২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট ও দোকানপাট খুলে দেওয়ার দাবি দোকান মালিক সমিতির কবিতাঃ “মাহে রমজান ” মোঃ জসীম উদ্দিন চৌধুরী গ্রেফতার হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক বাঁশখালীর কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্পের হত্যা কান্ডের সাথে এস আলম গ্রুপ দায়ী নয়, মাফিয়া সিণ্ডিকেট-ই দায়ী। শ্রমিকের পারিশ্রমিক (মজুরি) তার ঘাম শুকানোর পূর্বে দিয়ে দাও”— মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) চিত্র নায়ক ওয়াসিম আর নেই।

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে মৎস্য হ্যাচারী

  • সময় বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১
  • ৪১ পঠিত

আমিরুল ইসলাম কবিরঃ

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে মৎস্য হ্যাচারী। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রকৃত হ্যাচারী মালিকরা।

সরেজমিনগ তথ্যানুসন্ধানে প্রকাশ, পলাশবাড়ী উপজেলা ৫নং মহদীপুর ইউনিয়নের ছোট ভগবানপুর গ্রামের কুটিরঘাট ব্রীজ সংলগ্ন সদানন্দ চন্দ্রের পুত্র শৈলাস চন্দ্র ভাড়াকৃত জায়গায় লাইসেন্সবিহীন হ্যাচারী স্থাপন করে দীর্ঘদিন যাবৎ ব্যবসা করে আসছেন। একই ভাবে উপজেলার ৭নং পবনাপুর ইউনিয়নের ফকিরহাট নামক স্থানে সুমন মন্ডল ওরফে মনু ও গাইবান্ধা সদর উপজেলার সাহাপাড়া ইউনিয়নের চকচকা গ্রামের সুমন সরকার ও মাসুদ সরকার সরকারী নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে শুধু মাত্র ইউনিয়ন পরিষদের ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে আব্দুল্যা আল গালিব হ্যাচারী নামে ব্যবসা করে আসছেন। এতে করে লাইসেন্সধারী প্রকৃত ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন বলে ভুক্তভোগী সূত্র জানান।

এ ব্যাপারে শৈলাস চন্দ্রের সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান,এখন বাইরে আছি পরে কথা বলবো।

আব্দুল্যা আল গালিব হ্যাচারীর স্বত্বাধিকারী সুমন ও মাসুদ এ প্রতিবেদককে জানান,আমার প্রয়োজনীয় অবকাঠামোসহ কাগজপত্র ঠিক থাকা সত্বেও ৯/১০ মাস পূর্বে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করেও এখন পর্যন্ত লাইসেন্স পাইনি।

এদিকে ৬নং বেতকাপা ইউনিয়নের ডাকেরপাড়া গ্রামের লাইসেন্সধারী মৎস্য হ্যাচারী ব্যবসায়ী সবুজ মিয়া জানান, সরকার আমাকে লাইসেন্স দিয়েছে কিন্তু অন্যরা পরিপত্রের ক্যাটাগরি ৩ অমান্য করে নিয়ম বহির্ভুতভাবে হ্যাচারী স্থাপন করায় আমরা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি। এব্যাপারে তিনি সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনাসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানান।

এ বিষয়ে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার সরকার জানান,প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও কাগজপত্র ছাড়া হ্যাচারী স্থাপনের সুযোগ নেই।যারা হ্যাচারী স্থাপন করতে আগ্রহী তাদেরকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ লাইসেন্সের জন্য আমাদের দপ্তরে আবেদন করতে হবে।

এ ব্যাপারে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবদুদ দাঈয়ান বলেন,অবৈধভাবে হ্যাচারী স্থাপন করলে যদি কেউ করে থাকে তাহলে তাদের ভ্রামমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানাসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।√#

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD