1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা - DeshBarta
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
“সেইভ দ্যা হাঙ্গার পিপল” সংগঠন এর অভুক্তদের মাঝে খাবার বিতরণ সমাজসেবক আবদুল মাবুদ দোভাষের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ সাংবাদিক মাতা ছৈয়দা রোকসানা কাউসারের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত ছাত্রীকে বিয়ে করে গোপন রাখায় ৩ সন্তানের জনক শিক্ষক কে গণধোলাই কুয়াকাটায় হোটেলে মাদকসহ আটক দুমকির আওয়ামীলীগ নেতাকে বহিষ্কার দুমকিতে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে বিআরডিবির ঋণ বিতরণের উদ্বোধন ভাষা সৈনিক ও চমেক সাবেক উপ-পরিচালক ডা. শামসুদ্দিন চৌধুরী আর নেই ডাঃ এ,জে,এম শামসুদ্দিন চৌধুরীর দাফনে গাউসিয়া কমিটি স্বেচ্ছাসেবক টিম কোরআন ও হাদিসের আলোকে ইসলামী দাওয়াত এর গুরুত্ব! হাফিজ মাছুম আহমদ দুধরচকী। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে যোগদান করলেন কক্সবাজারের কৃতি সন্তান মো.মিজানুর রহমান

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • সময় সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ৫১ পঠিত

মোহাম্মদ আনিছুর রহমান ফরহাদ ব্যুরো চীফ।

করোনা সংক্রমণের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় খোলার কথা বলার জন্য বলা যেতে পারে। কিন্তু এটাও একটু চিন্তা করতে হবে, লেখাপড়া শিখবে, এ জন্য জেনেশুনে ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেব কি না।
একাদশ জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনের সমাপনী বক্তৃতায় সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। এর আগে সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবি জানান।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘স্কুল বন্ধ—এ জন্য একটু ক্ষতি হচ্ছে। টিকা দেওয়ার পরে আমরা সব স্কুল খুলে দেব। এর আগে আমরা যখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিলাম, তখনই সারা বিশ্বে করোনাভাইরাস মহামারি এমনভাবে ছড়িয়ে পড়ল, তার ধাক্কা এসে পড়ল আমাদের মধ্যে। এখন তো শিশুদেরও করোনা সংক্রমণ হচ্ছে। লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেব কি না, তা মাননীয় সংসদ উপনেতা একটু বিবেচনা করবেন। বলার জন্য বলতে পারেন, কিন্তু এটাও একটু চিন্তা করুন, ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে দেবেন কি না?
হাসপাতালে অক্সিজেনের যেন সমস্যা না হয়, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যান্ত্রিক কিছু ত্রুটি হলেও বিকল্প ব্যবস্থা রাখার কথা বলেন তিনি। অক্সিজেনের অভাবে মারা যাওয়ার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।
এ সময় সংসদ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। এরপর স্পিকার সংসদ অধিবেশন সমাপনীসংক্রান্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ পড়ে শোনান।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশের প্রতিটি হাসপাতালের অবস্থা সম্পর্কে খোঁজ নিচ্ছি। একেক সময় একটা জায়গায় হঠাৎ সমস্যা চলে আসে। আবার মাঝেমধ্যে যান্ত্রিক ত্রুটি হয়। এর কারণে যাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বা মৃত্যুবরণ করেছেন, আমি তাঁদের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। তবে এ রকম ত্রুটি যাতে না দেখা দেয় বা হলেও যাতে বিকল্প থাকে, ইনশা আল্লাহ সে ব্যবস্থা আমরা করব।
করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘লকডাউন ঘোষণা করছি। দেশবাসীকে বলব, আপনারা অন্ততপক্ষে নির্দেশনাগুলো মেনে নিজেকে সুরক্ষিত রাখেন। অন্যকেও সুরক্ষিত রাখেন। এটার একটাই উপায়—মাস্ক পরা, হাত পরিষ্কার করা, আর কোনোমতেই যেন সংক্রামিত না হয়, তা থেকে দূরত্ব বজায় রাখা।’ তিনি গরম পানির ভাপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘সেই সঙ্গে ভাপ নেওয়া। ভাপটা নিলে লাংকে কিছু জমে থাকলে সেটা তাড়াতাড়ি ক্লিয়ার হয়ে যায়। দু-তিনবার করে ভাপ নিলে পরেই, পাঁচ মিনিট করে নিলেও উপকার হয়। আমরা কিন্তু নিই। আমি গিয়েই কিন্তু ভাপ নেব। ঘরে ফিরেই আগে ভাপটা নেব।’ প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘গারগল করতে হবে। তবে গারগল করার সময় বেশি গরম পানি যেন না হয়। কুসুম গরম পানি দিয়ে করতে হবে। নতুবা গলার ক্ষতি হবে। এগুলো করতে পারলেই করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে পারব।
টিকার বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘টিকা আসতে শুরু করেছে। কোনো অসুবিধা হবে না। সারা বাংলাদেশে টিকা দিয়ে সবাই যেন সুরক্ষিত থাকে, সে ব্যবস্থা আমরা করব। করোনা পরীক্ষাও বিনা মূল্যে করে দিয়েছি। টিকার ক্ষেত্রে প্রবাসী কর্মীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। বাজেটে টিকার জন্য পর্যাপ্ত টাকা রাখা হয়েছে। ৩২ হাজার ২৪৭ কোটি টাকা আমরা বরাদ্দ রেখেছি। এর বাইরেও ১০ হাজার কোটি টাকা রাখা হয়েছে রিজার্ভ,
করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির মধ্যে জনগণের বাড়ি যাওয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণকে গত ঈদে অনুরোধ করলাম, জায়গা ছেড়ে কোথাও যাবেন না। কিন্তু কেউ শোনেনি। করোনা ছড়িয়ে পড়ল। তখন সবাই শুনলে এমন ছড়াত না; এটাই বাস্তবতা।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি পাশে দাঁড়াতে। দলের পক্ষ থেকেও মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। এমন কোনো খাত নেই, যেখানে আমরা সহযোগিতা করিনি।’
লকডাউনে মানুষের পাশে সরকার আছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যে বাজেট দিয়েছি, সেটাতে যেমন জীবন-জীবিকা প্রাধান্য দিয়েছি। কেউ না খেয়ে যাতে কষ্ট না পায়, তার জন্য দরকার হলে ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দেব।’

করোনার টিকার আর সমস্যা হবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ফাইজার, মডার্না ও সিনোফার্মের টিকা এসেছে। টিকার জন্য চীন, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া—সব জায়গায় যোগাযোগ করা হচ্ছে। টিকার জন্য পর্যাপ্ত টাকা রাখা হয়েছে বাজেটে। কোনো সমস্যা হবে না। তিনি আরও বলেন, অনেক দাম দিয়ে টিকা কেনা হচ্ছে। কিন্তু মানুষকে এই টিকা বিনা মূল্যে দেওয়া হচ্ছে। সীমান্ত এলাকায় যেখানে সংক্রমণ বেড়ে গেছে, সেখানে বিনা মূল্যে করোনার পরীক্ষা করা হচ্ছে। বিদেশগামীদের টিকার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে।

বিএনপির সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দলটি গণতন্ত্রের কথা বলে। অথচ এর জন্ম সামরিক স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমানের পকেট থেকে। তিনি একাধারে রাষ্ট্রপতি ও প্রধান সেনাপতি ছিলেন। এটা একমাত্র খুনি আইয়ুব খান করেছিলেন। ‘বিএনপি’ শব্দের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে হেসে ফেলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বিএনপি মানে বাংলাদেশ, না। পাকিস্তান, হ্যাঁ। এই তো তাদের দল।’

এখন দেশের ৯৯ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে—এটা বিএনপির সহ্য হচ্ছে না। তাদের সময় দুর্নীতির দায়ে বিশ্বব্যাংক টাকা দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল। বিদ্যুৎ চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জে মানুষকে গুলি করে হত্যা করা হয়। সার চাইলে কৃষককে হত্যা করা হয়। রোজার মাসে বেতন চাওয়ায় শ্রমিকদের গুলি করে মারা হয়।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD