1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
চট্টগ্রামে সর্বস্তরের জনগণের ঈদ উল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানালেন সৈয়দ আশিকুর রহমান প্রিন্স, - DeshBarta
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৬:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
“সেইভ দ্যা হাঙ্গার পিপল” সংগঠন এর অভুক্তদের মাঝে খাবার বিতরণ সমাজসেবক আবদুল মাবুদ দোভাষের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ সাংবাদিক মাতা ছৈয়দা রোকসানা কাউসারের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত ছাত্রীকে বিয়ে করে গোপন রাখায় ৩ সন্তানের জনক শিক্ষক কে গণধোলাই কুয়াকাটায় হোটেলে মাদকসহ আটক দুমকির আওয়ামীলীগ নেতাকে বহিষ্কার দুমকিতে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে বিআরডিবির ঋণ বিতরণের উদ্বোধন ভাষা সৈনিক ও চমেক সাবেক উপ-পরিচালক ডা. শামসুদ্দিন চৌধুরী আর নেই ডাঃ এ,জে,এম শামসুদ্দিন চৌধুরীর দাফনে গাউসিয়া কমিটি স্বেচ্ছাসেবক টিম কোরআন ও হাদিসের আলোকে ইসলামী দাওয়াত এর গুরুত্ব! হাফিজ মাছুম আহমদ দুধরচকী। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে যোগদান করলেন কক্সবাজারের কৃতি সন্তান মো.মিজানুর রহমান

চট্টগ্রামে সর্বস্তরের জনগণের ঈদ উল আযহার উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানালেন সৈয়দ আশিকুর রহমান প্রিন্স,

  • সময় রবিবার, ১৮ জুলাই, ২০২১
  • ৫৮ পঠিত

মোঃ নেছার আহম্মেদ

চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী থানার ছাত্র লীগের সভাপতি সৈয়দ আশিকুর রহমান প্রিন্স এর পক্ষে থেকে ঈদ উল আযহা শুভেচ্ছা এবং ঈদ উল আযহা – উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর ও পাহাড়তলী থানাধীন এলাকায় সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও জনগণের উদ্দেশ্য করে বলেন-ত্যাগের মহিমায় মহিমান্বিত পবিত্র ঈদ-উল-আযহা। সর্বশক্তিমান সৃষ্টিকর্তার প্রতি অপরিমেয় অনুগত্যের এক অপূর্ব ও অদ্বিতীয় নিদর্শন। একটি শান্তিপূর্ণ ও সহনশীল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় ধৈর্য্য ও সহনশীলতা অপরিহার্য। পবিত্র ঈদ-উল-আযহার মহান আদর্শ ও শিক্ষাকে আমাদের চিন্তায়, চেতনায় এবং কর্মে প্রতিফলন ঘটাতে হবে। চেষ্টা করতে হবে বাংলাদেশকে একটি সুন্দর, সফল, কার্যকর এবং শান্তিপূর্ণ রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে। ঈদ উল আযহার চেতনার আলোকে, জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই সহনশীলতা, সহমর্মিতা, ধৈর্য্যশীলতা ও ত্যাগী মনোভাবকে প্রাধান্য দেয়া এবং চর্চা করাই হউক আমাদের পাথেয়। আমরা সকলে পবিত্র ঈদুল আযহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণমুখী কাজে অংশ নিয়ে বৈষম্যহীন, সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তুলি।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৯.১০.১১.১২ নং ওয়ার্ডের সাধারণ জনগণকে সৈয়দ আশিকুর রহমান প্রিন্স এর পক্ষে থেকে শুভেচ্ছা অভিনন্দন,
ঈদ উল আযাহার উপলক্ষে জনগণের উদ্দেশ্যে করে- সৈয়দ আশিকুর রহমান প্রিন্স, শুভেচ্ছাবাণীতে বলেন, আমি বিশ্বাস করি পবিত্র ঈদ-উল-আযহা মুসলিম জাতির ভ্রাতৃত্ববোধকে আরো সুসংহত করবে, কল্যানকর করবে। ত্যাগের মহিমায় গড়ে উঠবে এক শান্তিপূর্ণ নতুন পৃথিবী ইন শা আল্লাহ।
এই মহাদুর্যোগ কোভিড ১৯ এ পৃথিবীতে যে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে, তার ভয়াবহতা বাংলাদেশে আরো প্রকটভাবে দেখা দিয়েছে। ঈদ উল আযহার ত্যাগের তাৎপর্য হৃদয়ে ধারণ করে আসুন আমরা আমাদের পরিবার-পরিজন, প্রতিবেশী, বন্ধু এবং পরিচিতদের মধ্যে, যাদের প্রয়োজন, তাদের পাশে আমাদের সাধ্য অনুযায়ী দাঁড়াই।

বিলিয়ে দেই ঈদ সবার তরে, বাড়িয়ে দেই মানবিক সহায়তার হাত। তিনি দেশবাসীকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, ত্যাগের মহিমায় উদ্বুদ্ধ হয়ে করোনা কালীন এই দুর্যোগ মুহূর্তে আসুন আমরা সকলে রাজনীতির উর্ধ্বে উঠে দল-মত নির্বিশেষে আরো বেশি সহানুভূতিশীল হই। সাধারণ মানুষের পাশে এই মুহর্তে দাড়ানো আমাদের সকলের দায়িত্ব এবং মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করি। পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, মাস্ক পরিধান করি, নিজে সুস্থ থাকি এবং অন্যকে নিরাপদ রাখি।

সৈয়দ আশিকুর রহমান প্রিন্স কোরবানি পশু বর্জ্য নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেন

কোরবানি পশু বর্জ্য নিষ্কাশনে আমাদের সকলের যা কতব্য

মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল-আযহা। আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে প্রত্যেক সামর্থ্যবান মুসলমান এই দিনে পশু কোরবানি করে থাকেন। বিপুল সংখ্যক পশুর বর্জ্য নিষ্কাশনে অব্যবস্থাপনা পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকি বয়ে আনতে পারে। রোগ জীবাণু ছড়িয়ে স্রান করে দিতে পারে ঈদের আনন্দ। একটু সচেতনতাই পারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর প্রভাব থেকে আমাদের রক্ষা করতে।

কোরবানির পশুর বর্জ্য নিষ্কাশনে যথাযথ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা না গেলে পরিবেশের জন্য বড় হুমকি হতে পারে। সমাজে সকলে মিলে একটু খেয়াল আর সচেতনতাই পারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর প্রভাব থেকে আমাদের রক্ষা করতে।

কোরবানির পর পশুর রক্ত, জবাইকৃত বজ্য ও তরল বর্জ্য খোলা স্থানে রাখা যাবে না। এগুলো গর্তের ভেতরে পুঁতে মাটি চাপা দিতে হবে। কারণ রক্ত আর নাড়ি-ভুঁড়ি কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দুর্গন্ধ ছড়ায়। আর যদি রক্ত মাটি থেকে সরানো সম্ভব না হয়, তা হলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। কোরবানির বর্জ্য পলিথিনে করে রেখে দিতে হবে, যাতে ময়লা পরিবহন দ্রু সঙ্গে করা যায়। কাজের ক্ষেত্রে অপরের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে স্বনির্ভর হওয়ার চেষ্টা করা উচিত। যে সব এলাকায় গাড়ি পৌঁছানো সম্ভব নয় বা দেরি হবে, সে সব স্থানে বর্জ্য পলিথিনের ব্যাগে ভরে ময়লা ফেলার নির্দিষ্ট স্থানে রাখতে হবে। পশুর হাড়সহ শক্ত বর্জ্যগুলো ও পলিথিনে দিয়ে দেয়া ভালো। নাড়ি-ভুঁড়ি বা এ জাতীয় বর্জ্য কোনো ভাবেই পয়ঃনিষ্কাশন নালায় ফেলা যাবে না। মানুষের সচেতনতার পাশাপাশি সকলের উদ্যোগ থাকলে রোগজীবাণু, দুর্গন্ধ বাতাসে ছড়াতে পারবে না।

সর্বশক্তিমান আল্লাহ্তাআলা সবাইকে নিরাপদে রাখুন, সুস্থ রাখুন।
সবাই কে ঈদ-উল-আযহার শুভেচ্ছা, ঈদ মোবারক

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD