1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
অপহরণের ৬ দিন পর উদ্ধার চন্দনাইশের মোজাম্মেল - DeshBarta
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাউজানে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সপ্তাহ ‘২২ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জে বন‍্যাদুর্গতদের মাঝে বঞ্চিত নারী ও শিশু অধিকার ফাউন্ডেশনের ত্রাণ বিতরণ মলম পার্টির খপ্পরে পড়ে সর্বস্বান্ত কাতার প্রবাসী। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির জরুরী সভায় আবুল হাশেম বক্কর। দুমকিতে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও আনন্দ মিছিল ২১ খালের ও ১১ প্রকল্প নিয়ে চসিক মেয়রের মন্তব্য। নেত্রকোণা জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে খালিয়াজুরীতে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ চন্দনাইশে ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বীজ-সার বিতরণ চন্দনাইশে মাদকের অপব্যবহার ও পাচাররোধে র‌্যালী-আলোচনা সভা উগ্রবাদ প্রতিহতে নাগরিকদের সচেতনতা বৃদ্ধিকরণে নাগরিক প্রশিক্ষণ

অপহরণের ৬ দিন পর উদ্ধার চন্দনাইশের মোজাম্মেল

  • সময় মঙ্গলবার, ১৫ মার্চ, ২০২২
  • ৬৪ পঠিত

জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী চন্দনাইশ প্রতিনিধি:
চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার দক্ষিণ হাশিমপুর নাসির মোহাম্মদপাড়া এলাকার মোজাম্মেল হক তালুকদার (৪৫) কে পাহাড়ি সন্ত্রাসীরা অপহরণের ৬ দিন পর ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণে নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। গত ১৪ মার্চ সোমবার রাত ১১ টায় ধোপছড়ি শীলঘাটা এলাকায় স্থানীয়রা তাকে দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে চন্দনাইশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করানো হয়।
অপহৃত মোজাম্মেল হক বলেন, গত সোমবার সন্ধ্যায় ৬ টায় আমাকে পাহাড়ের কোন এক স্থান হতে পায়ে হাঁটায় ধোপাছড়ী শীলঘাটা এলাকার একটি সেগুন বাগিচায় এনে ছেড়ে দেয়। তখন সন্ত্রাসীরা আমাকে বলে যে ৩০ মিনিট হাটলে মেম্বারের বাড়ী, তুমি ওখানে গেলে মানুষ তোমাকে দেখবে। স্থানীয় মেম্বারর সাথে দেখা হলে মেম্বার মোজাম্মেলকে আরো স্থানীয় মানুষের সহযোগিতায় চন্দনাইশ হাসপাতালে নিয়ে আসে। তিনি আরো বলেন, সোমবার সকালে আমার স্ত্রী, ও ছেলে পাহাড়ের একটি স্থানে গিয়ে ১০ লাখ টাকা দিয়ে আসে। মোজাম্মেল আরো বলেন, পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের স্থানীয় কয়েকজনের যোগসাজশে তাকে অপহরণে সহযোগিতা করে। উল্লেখ্য যে, গত ৯ মার্চ সন্ধ্যায় তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ওই দিন সন্ধ্যার পরপর ২৫/৩০ জনের একটি স্বশস্ত্র পাহাড়ি সন্ত্রাসী এসে মোজাম্মেলকে তুলে নিয়ে যায়।
জানা যায়, উপজেলার হাশিমপুরের মৃত আবদুল জব্বারের ছেলে মোজাম্মেল হক তালুকদার গত ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। তিনি পেশায় একজন ঠিকাদার। বরুমতি খালের ভাঙ্গন প্রতিরোধে হাশিমপুর নাসির মোহাম্মদপাড়া এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি প্রকল্পের কাজ চলছিল। মোজাম্মেল সে প্রকল্পের কাজে ব্যবহারের জন্য একটি স্কেভেটর ভাড়া দিয়ে লেবারদের নিয়ে কাজ করছিলেন। মোজাম্মেলকে তুলে নিয়ে যাওয়ার প্রায় ২০ ঘন্টা পর ২০ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরীর মোবাইল ফোনে কল করেন সন্ত্রাসীরা।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরী বলেন, চন্দনাইশ থানা পুলিশ ও র‍্যাবের সুকৌশলী চাপের মূখে তারা মোজাম্মেলকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছে। থানা অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন বলেন, পরিবারের পক্ষ হতে খবর পেয়ে চন্দনাইশ থানা ও ধোপাছড়ি তদন্ত কেন্দ্র যৌথভাবে রেখে যাওয়া স্থান থেকে উদ্ধার করে চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়। সে মোটামোটি সুস্থ আছে।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD