1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
ঈমান এবং নির্ধারিত ইবাদতগুলো ইসলামের মূলভিত্তি- আমির হোসাইন - DeshBarta
বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
চন্দনাইশে আ.লীগ নেতা ওয়াহিদ মাস্টারের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত জাহিদ হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে উপজেলা ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল ইতিহাস৭১.টিভির বর্ষপুর্তি উপলক্ষে আলোচনা ও কেক কাটা অনুষ্ঠান সম্পন্ন ”কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম জনগনের আস্থার প্রতিফলন ঘটাবে এবং আপোসযোগ্য অপরাধ নিরসনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে” – উপজেলা নির্বাহী অফিসার, আনোয়ারা। চন্দনাইশে খাল পূনঃ খনন কাজের উদ্বোধন করেন এমপি নজরুল ইসলাম চৌধুরী এস আলমের পন্যবাহী জাহাজের ধাক্কায় নবনির্মিত কালারপোল সেতু ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের ক্ষোভ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি পদে গোলাম কিবরিয়াকে কেন অপরিহার্য- যিকরু হাবিবীল ওয়াহেদ কম ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে সমগ্র বিশ্বে বাংলাদেশের মুদ্রা দ্বিতীয় স্থানে – ড. সেলিম মাহমুদ পটিয়াতে প্রত্যয়ের উদ্যোগে রবীন্দ্র নজরুল জয়ন্তী অনুষ্ঠান

ঈমান এবং নির্ধারিত ইবাদতগুলো ইসলামের মূলভিত্তি- আমির হোসাইন

  • সময় রবিবার, ১ মে, ২০২২
  • ২১ পঠিত

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ- চট্টগ্রামের পটিয়ার কৃতি সন্তান বিশিষ্ট সমাজ সেবক পটিয়া ব্যাংকার ফোরাম সভাপতি ও হাজী আবদুস সাত্তার জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সহ সভাপতি, ইসলামি ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক খাতুনগন্জ শাখার অপারেশন ম্যানেজার আলহাজ্ব আমির হোসাইন বলেছেন, পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ বলেছেন, ওয়ামা খালাকতুল জিন্না ওয়াল ইন্সা ইল্লা লিয়া’বুদুন। অর্থাৎ, আমি মানব ও জিন জাতিকে শুধু আমার ইবাদতের জন্যই সৃষ্টি করেছি, এর বাইরে আর কোনো উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করিনি। সাধারণত মানুষ ইবাদতের অর্থকে খুবই সীমিত করে তোলে। তারা নির্দিষ্ট ইবাদত বা উপাসনাকেই মানবসৃষ্টির উদ্দেশ্য বলে ধরে নেয়। এরফলে তারা পার্থিব জীবনকে অস্বীকার করে। এদের খন্ডিত বুঝ তাদের দুনিয়াত্যাগী বৈরাগ্যবাদের দিকে ঠেলে দেয়। যদিও মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে বলে দিয়েছেন, ওয়ালা তানসা নাসীবাকা মিনাদ দুনিয়া। অর্থ্যাৎ, ইহজীবনে তোমার অংশটুকু তুমি ভুলে যেওনা। তিনি নিজেই মানুষকে এ দোয়া শিক্ষা দিয়েছেন, রাব্বানা আতিনা ফিদ্দুনিয়া হাসানাতাও ওয়াফিল আখিরাতি হাসানাতাও ওয়া কিনা আজাবান নাার। অর্থাৎ, হে মালিক, আপনি আমাদের দুনিয়ার কল্যাণ ও আখিরাতের কল্যাণ দান করুন এবং আমাদের জাহান্নামের আগুন থেকে রক্ষা করুন।
এখানে যা বুঝতে হবে সেটি হলো নির্ধারিত ইবাদত তো ইবাদতই। যা অবশ্যই পালন করতে হবে। কিন্তু ঈমানদারের জীবনের বাকি সব কাজও ইবাদতের অন্তর্ভুক্ত যদি তা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য রাসূল সা.-এর শেখানো পথে করা হয়। সুন্নত অনুযায়ী ২৪ ঘন্টার প্রতিটি কাজ করা হলে মুসলমানের গোটা জীবনটিই ইবাদতে পরিণত হতে পারে। উদাহরণত বলা যায়, আপনি নামাজ পড়ছেন তাহলে আপনি আল্লাহর ইবাদত করছেন। আপনি রোজা রাখছেন আল্লাহর ইবাদত করছেন। এমনই আপনি জাকাত দিচ্ছেন, হজ-ওমরা করছেন, তিলাওয়াত ও জিকির করছেন, দান সাদাকাহ করছেন আপনি আল্লাহর ইবাদত করছেন। কিন্তু আপনি যখন হালাল জীবিকার জন্য মেধা, শক্তি ও সময় ব্যয় করছেন তখন আপনি কী করছেন? আপনি যখন মানুষ ও মানবতার সেবায় কোনো কাজ করছেন, আপনি তখন কী করছেন? ইসলাম বলে, এ সময়ও আপনি মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের ইবাদতই করছেন।

ঈমান এবং নির্ধারিত ইবাদতগুলো ইসলামের মূলভিত্তি। এসব ছাড়া মানুষ ঈমানদার ও ইবাদত গোযার হতে পারে না। কিন্তু শুধু এগুলোই ইবাদত নয় বরং জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই ইবাদতের শাখা বিস্তৃত করে রাখা হয়েছে। যেমন, আপনি যখন অন্য কাউকে সাহায্য করছেন তখনও আপনি আল্লাহর ইবাদতই করছেন। অভাবিকে খাবার দিচ্ছেন, বাবা-মার আনুগত্য, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা-ভালোবাসা ও তাদের প্রতি সর্বোচ্চ সদাচরণ যখন করছেন, যখন আত্মীয়তার বন্ধন রক্ষা ও এর পরিচর্যা করছেন, তাদের হক আদায় করছেন, আপনি মানুষের অধিকার আদায় করে দিচ্ছেন, আপনি খারাপ কথাবার্তা পরনিন্দা অশ্লীলতা বাজে কথা থেকে নিজের জবানকে রক্ষা করছেন, পরিবার পরিজনের সাথে নম্র আচরণ করছেন, আপনি আপনার ক্রোধ নিয়ন্ত্রণে রাখছেন, ক্রয়-বিক্রয়ে আপনি উদার ও মহত্বের পরিচয় দিচ্ছেন, আপনি ঘুষ খাচ্ছেন না, একাকী অবস্থায়ও আপনি আল্লাহকে সর্বদ্রষ্টা বিশ্বাস করে গোনাহ থেকে বেঁচে থাকছেন, আপনি গোনাহর কাজ থেকে নিজের চোখ কান ও সকল অঙ্গকে বাঁচিয়ে রাখছেন, যখন আপনি সকল কাজে ধৈর্য ও সহিষ্ণুতার চর্চা করছেন, আপনি সর্বক্ষেত্রে নীতি আদর্শ, বিনয় ও ভদ্রতার উপর অটল রয়েছেন, সবসময় সত্য কথা বলেছেন, আপনি যখন নিজের শরীর, পোষাক, বাড়ি, কর্মস্থল, পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখছেন, আপনি যখন আপনার কর্ম ও জীবিকায় দায়িত্ববান, সৎ ও বিশ্বস্ত থাকছেন, তখনও আপনি মহান আল্লাহর ইবাদতেই লেগে আছেন। যে জন্য আল্লাহ আপনাকে সৃষ্টি করেছেন।
এমনিভাবে আপনার বিশ্রাম, ঘুম, ব্যায়াম, ওজু, গোসল, অবসর, বিনোদন, সবই ইবাদত যদি সেসব সুন্নত অনুযায়ী হয়। এমনকি একে অপরের সাথে হাসিমুখে কথা বলাও ইসলামে ইবাদত বলে গণ্য। এসব আচরণ ও পেশাগত ইবাদতের পক্ষে অসংখ্য আয়াত ও হাদীস রয়েছে। ক্ষুদ্র এ লেখায় এসব আনা যাবে না তবে আলোচনায় সব উদ্ধৃতি সন্নিবেশিত করা গেলে এটি একটি নানা বর্ণের ফুলে ফুলে সজ্জিত পুষ্প কাননে পরিণত হতো। জীবন যত বড়, ইবাদতের বৃত্তও তত বড়। ইবাদতকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। জীবনের দাবিকে অস্বীকার করে ইসলাম পালন করা যায় না।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD