1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
দিনাজপুরে হত্যা মামলায় ৩ জনের ফাঁসি, ৪ জনের যাবজ্জীবন - DeshBarta
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৯:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাউজানে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সপ্তাহ ‘২২ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জে বন‍্যাদুর্গতদের মাঝে বঞ্চিত নারী ও শিশু অধিকার ফাউন্ডেশনের ত্রাণ বিতরণ মলম পার্টির খপ্পরে পড়ে সর্বস্বান্ত কাতার প্রবাসী। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির জরুরী সভায় আবুল হাশেম বক্কর। দুমকিতে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও আনন্দ মিছিল ২১ খালের ও ১১ প্রকল্প নিয়ে চসিক মেয়রের মন্তব্য। নেত্রকোণা জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে খালিয়াজুরীতে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ চন্দনাইশে ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বীজ-সার বিতরণ চন্দনাইশে মাদকের অপব্যবহার ও পাচাররোধে র‌্যালী-আলোচনা সভা উগ্রবাদ প্রতিহতে নাগরিকদের সচেতনতা বৃদ্ধিকরণে নাগরিক প্রশিক্ষণ

দিনাজপুরে হত্যা মামলায় ৩ জনের ফাঁসি, ৪ জনের যাবজ্জীবন

  • সময় মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২
  • ২৩ পঠিত

তাজ চৌধুরী স্টাফ রিপোর্টার

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার একটি হত্যা মামলার ১৩ বছর পর তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড ও চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (২৩ মে) বিকেলে দিনাজপুরের অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত-২-এর বিচারক মেহেদী হাসান মণ্ডল এ রায় ঘোষণা করেন।

আদালতের সহকারী সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) মোস্তাফিজুর রহমান টুটুল রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন ফুলবাড়ী উপজেলার গরপিংলাই গ্রামের তাসের উদ্দিনের ছেলে শরীফুল ইসলাম (৪৩), আজাহার আলীর ছেলে রেজাউল করিম বাবু (৪৮) ও আজিজ সিদ্দিকীর ছেলে আতোয়ার ওরফে আতর আলী (৫১)।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন আতোয়ার আলীর ছেলে গোলাম রব্বানী (৪৪) ও একরামুল হক (৫১), মৃত সিরাজ উদ্দিনের ছেলে সাঈদ আলী (৫৮) ও ইদ্রিস আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৪৪)।

যাবজ্জীবনপ্রাপ্তদের ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। অপর এক ধারায় আসামিদের ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেন বিচারক।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ফুলবাড়ী উপজেলার গরপিংলাই গ্রামের সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে তার স্ত্রী একই এলাকার আজাহার আলীর মেয়ে নারগিস নারী নির্যাতনের মামলা করেন। ২০০৯ সালের ২ আগস্ট ওই মামলার রায়ে সাইফুল ইসলামকে এক বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। মামলা চলাকালে সাইফুল ইসলাম তার জমিজমা বড় ভাই শহিদুল ইসলামের ছেলে তৌহিউল ইসলাম বাবু ও হুমায়ুন কবিরের নামে লিখে দেন।

মামলার রায়ের ১৮ দিন পর সন্ধ্যায় হুমাযুন কবির তার মুদি দোকান থেকে বের হয়ে জয়নগর বাজারের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। এরপর তিনি আর বাড়ি ফেরেননি। পরের দিন এমআইবি নামক ইটভাটার সামনে ইটের স্তূপের নিচে হুমায়ুন কবিরের রক্তমাখা মরদেহ পাওয়া যায়। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তাকে হত্যা করা হয়। পরে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় ওইদিনই নিহত ব্যক্তির বড় ভাই তৌহিউল ইসলাম বাদী হয়ে পাঁচজনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে সাতজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, জমিজমা-সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরেই হুমায়ুন কবিরকে হত্যা করেন আসামিরা। এ ঘটনার দীর্ঘ ১৩ বছর পর সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে সোমবার আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা সবাই নিহত হুমায়ন কবিরের চাচা সাইফুল ইসলামের স্ত্রী নারগিসের ভাই ও ভাতিজা।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD