1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. salehbinmonir@gmail.com : News Editor : News Editor
চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী গোলাম কিবরিয়া - DeshBarta
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১০:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাঙ্গুনিয়া শান্তিনিকেতনে সরকারী রাস্তায় গৃহ নির্মাণ যাতায়াতে বিঘ্নতা : রাস্তা পুনরুদ্ধার দাবী চকরিয়ার বরইতলীতে শারদীয় দুর্গোৎসব পরিদর্শন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক নির্বাচন কমিশনের সাথে ইলেকশন মনিটরিং ফোরাম (ইএমএফ)’র মতবিনিময় জামালপুর শহরে পৌরসভার নামে অটোতে চাদাঁবাজি কালে দুই যুবক আটক জামালপুর জেলায় প্রাথমিক শিক্ষায় বিশেষ অবদানের জন‍্য শ্রেষ্ঠ ইউএনও নির্বাচিত তানভীর হাসান রুমান। পীরগঞ্জে পাওনা টাকা চাইতে যাওয়ায় বৃদ্ধকে প্রহার. লক্ষাধিক টাকা মূল্যের গাছ বিক্রি করে আত্মসাৎ করলেন প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী রাজু মাঠের বাজার আবু বক্কর ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষের নানা দুর্নীতি বিদ্যুৎ বিভ্রাট নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনা করায় প্রবাসীর স্ত্রী গ্রেফতার মানুষ বিশ্বাস ঘাতক, পশু পাখিরা কখনো বিশ্বাস ঘাতকতা করবেনাঃ বিশ্ব প্রাণী দিবসের কর্মসূচীতে বক্তারা

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী গোলাম কিবরিয়া

  • সময় শুক্রবার, ২৭ মে, ২০২২
  • ৭২ পঠিত

মাটি ও মানুষের সাথে যাঁর নিবিড় সম্পর্কের মধ্য দিয়ে বর্তমান প্রজন্মের রাজনীতিকে উৎসাহিত করে অনুপ্রাণিত ভাবে গড়ে তলেছে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের গোলাম কিবরিয়া। হাঁটি হাঁটি পা-পা করে বাবার পথকেই অনুসরণ করে পারিবারিক ভাবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন করে আওয়ামী রাজনীতিতেই বেড়ে উঠে এই গোলাম কিবরিয়া। ফটিকছড়ি উপজেলার ধুরুং ইউনিয়নের জন্মসূত্রকে আগলে রেখে শহর ছেড়ে নিজ এলাকায় ছাত্র রাজনীতির মধ্যে মনোনিবেশ করেন। ১৯৮৩ সালের ৩১ জুলাই বঙ্গবন্ধুর কর্মী মরহুম আহমদ ছাফা ও তার স্ত্রী ইছমত আরা’র কোলজুড়ে আলোকবর্ষ হয়ে আসেন মোঃ গোলাম কিবরিয়া। নবম-দশম শ্রেণীর ছাত্রাবস্থায় সহপাঠীদের নিয়ে বিভিন্ন সভা সেমিনার পদার্পণ ঘটাতে থাকে। এস.এস.সি পাশের পরপরই (১৯৯৯-২০০১) ধুরুং ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়। তারপর আরও শক্ত হাতেই হাল ধরেন ছাত্রলীগের রাজনীতিকে। ২০০১ সালে স্নাতক করতে ফটিকছড়ি কলেজে ভর্তি হলে রাজনীতির শুরুতেই কলেজের একটা অপ্রীতিকর ঘটনাকে কেন্দ্র করে কলেজ কর্তৃপক্ষ রাজনীতি বন্ধ করে দিলেও পিছুপা হননি গোলাম কিবরিয়া। ২০০২ সালে কলেজ আহ্বায়ক হয়ে শত বাঁধা বিপত্তির মধ্যে আবারও চালু করা হয় ছাত্র রাজনীতি। সল্প সময়ের ব্যবধানে কলেজ রাজনীতি থেকে ফটিকছড়ি উপজেলা ছাত্র রাজনীতিতেও নেতৃত্বের বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে শুরু করলেই ২০০৩ সালে উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি হওয়ার চূড়ান্ত হলেও সিনিয়র নেতাদের মতানৈক্যর কারনে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি আর হয়নি। মূলত ঐ কমিটি গঠিত হলেই সভাপতি পদে নির্বাচিত হতো এই তুখোড় তরুণ রাজনৈতিক গোলাম কিবরিয়া। হাল ছাড়েননি, মেধা-মননেরের মধ্যে স্হান করে নিলো জেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন ও জেলা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে। তৎকালীন সময়ে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিল রাজিবুল হাসান সুমন। এরপর (২০১১-২০১৫) সালে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের চূড়ান্ত কমিটি হলে সোহাগ-নাজমুলেরের কমিটিতে সদস্য লাভ করে, সদা-সচ্ছতার রাজনীতির কারনে উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটিতেও সদস্য করে নেওয়া হয়। ফটিকছড়ির শতবছরের পুরনো স্কুলের একজন দাতা সদস্য ও দুইবার পরিচালনা কমিটির দায়িত্বে থাকেন। বর্তমানে উপজেলা ক্রিড়া সংস্থার সদস্য হয়ে ক্রীড়াঙ্গনকে এগিয়ে নিতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে এবং উপজেলা প্রাইমারী শিক্ষা কমিটির শিক্ষানুবারন সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছে এই তরুণ প্রজন্মের কান্ডারী গোলাম কিবরিয়া। ২০১৬ সালে জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষে মনোনীত হয়ে জেলা পরিষদের নির্বাচন অংশগ্রহণ করে। ঐদিকে ২০১৪ সালে জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলের প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ প্রচারণা নিয়োজিত থাকলে ঐদিকে জামাত- বিএনপির দোসররা তাঁর নিজ বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণসহ সাড়াশি আক্রমণ চালায়। এখানেও ধমে যাননি গোলাম কিবরিয়া, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকের ভিতর সাহস যুগিয়ে রাজপথ ছেড়ে পিছু হটেননি। আন্দোলন সংগ্রামের বলিষ্ঠ ভূমিকাই আজ সকলের কাছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে প্রান্তিক দূর্বার হয়ে উঠেছে। তাইতো আগামীদিনের ভবিষ্যৎ উত্তর জেলা যুবলীগের কান্ডারীর হওয়ার অনুপ্রেরণা করে তুলছে রাজনৈতিক সহকর্মীরা। সবার আশাবাদী, গোলাম কিবরিয়া আজ যে উত্তর জেলা যুবলীগের সভাপতি পদে প্রত্যাশিত তা সেটা তার প্রাপ্যতা। যুবলীগের কান্ডারী হয়ে হাল ধরলে অনেক সচ্ছতাঁর রাজনীতি গড়ে উঠবে মনে করেন স্হানীয় সাধারণ জনগণ। উত্তর জেলা যুবলীগের রাজনীতি ও কমিটি নিয়ে এক সাক্ষাতে গোলাম কিবরিয়া বলেন আমাদের পুরো পরিবার আওয়ামী রাজনীতির অংশ আমার বাবা মরহুম আহমদ ছাফাও একনিষ্ঠ আওয়ামী কর্মী ছিলেন, এবং ফটিকছড়ি উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান বর্তমান উত্তর জেলা আওয়ামীলীগে সহ সভাপতি আলহাজ্ব আফতাব উদ্দীন চৌধুরী আমার মামা সেক্ষেত্রে আমাদের একটা পারিবারিক শিক্ষা ও রাজনৈতিক আদর্শের জায়গা মনে করি। দলের কেন্দ্রীয় সঠিক সিদ্ধান্তকে আমি রাজনৈতিক পথচলা মনে করি এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বাস্তবায়নে আমি সবসময় কাজ করে যাবো এটাই হচ্ছে আমার মূল লক্ষ।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশ বার্তা
Theme Customized By TeqmoBD